টাকা আদায়ের জন্য় গরম চাটুতে চেপে ধরে অত্য়াচারের অভিযোগে ৪ জনকে গ্রেফতার করল পুলিশ। ঢাকুরিয়ার পঞ্চাননতলা থেকে মধ্য় বয়স্কের দিলীপ বন্দ্য়োপাধ্য়ায়কে তুলে নিয়ে এসে ধৃতরা বেধড়ক মারধোর করে বলে অভিযোগ। ওই ঘটনায় পিন্টু কাপাথ, প্রবীর ভট্টাচার্য, বিশ্বজিৎ রায় এবং গৌরাঙ্গ বর্ধন নামে চার জনকে গ্রেফতার করেছে রবীন্দ্র সরোবর থানা। 

আরও পড়ুন, করোনা মোকাবিলায় সতর্ক কলকাতা চিড়িয়াখানা, কড়া নজরদারি বিদেশিদের ওপরে


সূত্রের খবর, দফায় দফায় জেরায় ধৃতদের থেকে পুলিশ আসল কারণটা জানতে পারে। ধৃতেরা জেরার মুখে জানিয়েছেন তাঁরা দিলীপের থেকে টাকা পান। শেক্সপিয়র সরণির একটি জমির  পাওয়ার অব অ্যাটর্নি  দিলীপের কাছে রয়েছে। সেই জমি সস্তায় পাইয়ে দেবেন বলে দিলীপ, কিছু বছর আগে বিভিন্ন লোকের কাছ থেকে প্রায় এক কোটি টাকা নিয়েছিলেন। অভিযোগ, জমি তো দূরহস্ত জমির পরচাটুকুও দিলীপবাবু দেখাতে পারেননি। পাওনাদারেরা দিলীপের সন্তোষপুরের বাড়িতে হানা দিলে তিনি সেখান থেকে পালিয়ে যান। ফুটপাতে থাকা শুরু করেন। তবে  পুলিশের দাবি, ধৃতেরা এই সব অভিযোগ লিখিত ভাবে জানাননি।

আরও পড়ুন, মাধ্য়মিক পরীক্ষার্থীর সঙ্গে অসহযোগিতা, প্রধান শিক্ষকের বেতন বন্ধের নির্দেশ হাইকোর্টের


পুলিশি সূত্রে জানা গিয়েছে, শনিবার রাত সাড়ে আটটা নাগাদ ঢাকুরিয়ার পঞ্চাননতলা থেকে দিলীপকে তুলে প্রথমে বালিগঞ্জের  জমির লেনে নিয়ে যান ধৃত ওই চার জন। এবং সেখানে তাঁকে মারধর করার পরে টেনে নিয়ে এসে ফুটপাতের একটি খাবারের দোকানের গরম চাটুতে দিলীপের বাঁ হাত ঠেসে ধরা হয় বলে অভিযোগ।  এবং সেই সময় সেই সময়ে আলিপুর থানার এক কনস্টেবল সেখান দিয়ে যাচ্ছিলেন। তখন তিনি ধৃতদের কথোপকথন শুনতে পান।   'কিডন্যাপ, 'এক কোটি টাকা' এমন কয়েকটি শব্দ শুনেই সন্দেহজনক হয় ওই কনস্টেবলের। এরপরই তিনি থানায় খবর দেন এবং আলিপুর থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে দিলীপ ও বাকিদের থানায় ধরে নিয়ে আসে। রাতে রবীন্দ্র সরোবর থানার পুলিশ অভিযুক্ত চার জনকে গ্রেফতার করে।