জিডি বিড়লা স্কুলের পরে এবারে কলকাতার আরও এক বেসরকারি স্কুল। বালিগঞ্জ শিক্ষা সদনের দশম শ্রেণির এক ছাত্রী কৃত্তিকার মতোই শৌচালয়ে হাতের শিরা কেটে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করল। 

শৌচালয়ে ব্লেড নিয়ে ঢুকেছিল সেই ছাত্রী। শৌচালয়ের বাইরে সিসিটিভি ক্যামেরা ছিল।  ১৫ মিনিট হয়ে গেলেও শৌচালয় থেকে না বেরনোয় সন্দেহ হয় শিক্ষাকর্মীদের। ডেকে সাড়া না পাওয়ায় দরজা ভাঙতে হয়।  তারপরে শৌচালয়ে গিয়ে তাকে উদ্ধার করা হয়। ছাত্রী নিজের বাঁ হাতে ব্লেড দিয়ে কাটার চেষ্টা করে। সঙ্গে সঙ্গে স্কুল কর্তৃপক্ষ তাকে স্থানীয় এক হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে বাড়িতে খবর দেওয়া হলে তাকে অভিভাবক এসে নিয়ে যায়। শৌচালয় থেকে পেনসিল কাটার শার্পনার ও ব্লেড পাওয়া গিয়েছে। 

সুস্থ হওয়ার পরে ছাত্রীকে কারণ জিজ্ঞাসা করা হলে সেও কৃত্তিকার মতোই মনে অবস্থার কথা জানায়। সে জানায়, সবাই কাজে ব্যস্ত। আমায় কেউ ভালোবাসে না। কারও সময় নেই। 

এমনিতে খুব হাসিখুশি মেয়ে বলে জানিয়েছেন স্কুলের শিক্ষকরা। কিন্তু এভাবে যে অবসাদগ্রস্ত হচ্ছে ছাত্রী, তা তারা টের পায়নি। 

ছাত্রীর বাবা কর্মসূত্রে বাইরে থাকেন। মাও কর্মরতা। বেশ কিছুদিন মানসিক অবসাদে ভুগছিল সে, জানান ছাত্রীর মা। সে জন্যও চিকিৎসকও দেখানো হয় তাকে।