নেট দুনিয়ায় বান্ধবী পেতে গিয়ে কলকাতার এক যুবক খোয়ালেন ৫০ হাজার টাকা। বেশ কয়েকদিন ধরেই বহুজাতিক সংস্থার এক কর্মী বান্ধবী খুঁজছিলেন। বান্ধবী পেতে ইচ্ছুক বলে তিনি নেট দুনিয়ায় একটি আবেদন করেন।  এই আবেদনের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই ফোন আসে এক যুবতীর। তিনি ওই যুবকের সঙ্গে  বন্ধুত্ব করতে ইচ্ছুক বলে জানান। বেশ কয়েকবার তাঁরা ফোনে কথাও বলেন। শুধু তাই নয়,  একবার দক্ষিণ কলকাতায় দেখা করেন দুজনে বলে যুবক জানান।  

কিন্তু কয়েক দিন পর থেকেই পরিস্থিতি অন্য দিকে ঘুরতে থাকে। ওই যুবকের স্ত্রীর নম্বর জোগার করেন ওই যুবতী। বার বার ফেসবুকে হুমকি দিতে থাকেন, ৫০ হাজার টাকা না দিলে  যুবতী ব্যক্তিটির স্ত্রীকে সব কথা জানিয়ে দেবেন।  হুমকি দিতে গিয়ে যুবতী জানান, এতদিন যা কথা হয়েছে, সব ফোনে রেকর্ড করা আছে। প্রয়োজন পড়লে সেই রেকর্ডও তাঁর স্ত্রীর কাছে পৌঁছে দেবে। দুজনের সাক্ষাতের ভিডিও আছে বলে ওই যুবতী দাবি করেন।  এই পরিস্থিতিতে বিপাকে পড়ে সংসার বাঁচাতে, নিজের পরিচয় গোপন করতে ওই যুবতীকে ৫০ হাজার টাকা দেন বহুজাতিক সংস্থায় কর্মরত ওই ব্যক্তি। 

তবে এখানে থেমে থাকেননি  ওই যুবতী। হুমকি চলতে থাকে। তারপরে আরও ২০ হাজার টাকা চান ওই যুবতী। পরে যুবতী এক লক্ষ টাকা দাবি করে ওই ব্যক্তির পরিচয় গোপন রাখতে। পরিস্থিতি বেগতিক বুঝে  ওই ব্যক্তি থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। থানা থেকে পালটা টোপ দেওয়া হয়। যুবতীকে সোনারপুকর স্টেশনে আসতে বলা হয়। যুবতী সোনারপুর স্টেশনে এসে ওই ব্যক্তিকে ফোন করলে পুলিশ তাকে আটক করে বলে জানা গিয়েছে।  পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে, বন্ধুত্ব করার নাম করে ফাঁদ পাতত ওই যুবতী। একটু ঘনিষ্ট হলেই ব্যক্তিগত সব কথা জেনে ব্ল্যাকমেইল করত। এই যুবতীর সঙ্গে আরও কয়েকজন মহিলা যুক্ত আছেন  বলে জানা গিয়েছে।