বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডার ছেলের বিয়েতে বিমল গুরুং, রোশন গিরিদের উপস্থিতি নিয়ে শোরগোল পড়ে গেল রাজ্য় রাজনীতিতে। রাজ্য়ের খাতায় পলাতক পাহাড়ের নেতারা কীভাবে বিজেপি নেতার সঙ্গে ছবি তোলান তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে শাসক দল। বিষয়টি প্রকাশ্যে আসতেই অস্বস্তি বেড়েছ বিজেপি  শিবিরে।  

প্রেমিকাকে চিরবিদায় জানিয়ে আত্মঘাতী যুবক, তদন্তে নিউটাউন থানার পুলিশ 

রাজ্য়ের খাতায়  পলাতক নেতাদের দেখা যাচ্ছে বিজেপির  নিমন্ত্রণে। বেশ কয়েকমাস পর ফের প্রকাশ্যে বিমল গুরুং, রোশন গিরিদের ছবি। ছবিতে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডার পাশে দাঁড়িয়ে ছবি তুলতে দেখা গিয়েছে রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলায় অভিযুক্ত দুই নেতাকে। গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার এই দুই নেতার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলা রুজু করেছে পশ্চিমবঙ্গ পুলিশ। দুজনের খোঁজে একাধিকবার পাহাড়ে তল্লাশি চালানো হয়েছে। বিমল গুরুং-এর কালিম্পঙের বাড়িতে গিয়েও তাঁর হদিশ মেলেনি। অন্তত তেমনটাই জানিয়েছে রাজ্য় পুলিশ।

পুজোর আগেই চলতে পারে দক্ষিণেশ্বর মেট্রো, এপ্রিলেই শুরু ট্রায়াল রান
 
রাজ্য়ের সাম্প্রতিক অতীত বলছে ,মোর্চাার এই দুই নেতা সিকিমে লুকিয়ে থাকতে পারে এমন আঁচ করেছিল রাজ্য় পুলিশ। সেই খবর পেয়ে ২০১৭ সালে সিকিম পুলিশের সঙ্গেও যোগাযোগ করে পশ্চিমবঙ্গ পুলিশ। রাজ্য সরকারের তরফেও কথা হয় পবন চামলিঙের সরকারের সঙ্গে। কিন্তু সেখানেও গুরুঙের হদিশ মেলেনি। দার্জিলিঙ, কালিম্পং, কার্শিয়ং থেকে একের পর এক গুরুং ঘনিষ্ঠ গ্রেফতার হলেও তাঁদের দেরা করেও মেলেনি রোশন-বিমলদের খোঁজ। 

মাথার ওপর পার্থ, শোভনের জায়গায় পুরভোটের দায়িত্বে এলেন রত্না

পাহাড়ের বর্তমান পরিস্থিতি  বলেছ, মানুষ তাদের সঙ্গে রয়েছে দাবি  করে মাঝে মধ্য়েই নিজেদের ছবি সোশ্য়াল মিডিয়ায় দেন গুরুংরা। মিডিয়ার মাধ্য়মে তারা জানান, শীঘ্রই পহাড়ের রাজনীতিতে ফিরবেন তারা। বিভিন্ন মামলায় জড়িত থাকায় গত কয়েক বছরে পাহাড়ে তাঁদের দেখা মেলেনি। বিনয় তামাংকে মুখ্যমন্ত্রী মোর্চার প্রধান পদে বসানোর পরেও বিনয়ংকে নিশানা করে একের পর এক মন্তব্য করেছেন রোশন-গুরুংরা। তা নিয়ে বিভক্ত হয়ে পড়েচে পাহাড়ের মানুষ।

গত ২৬ ফেব্রুয়ারি ছেলের বিয়ে হয় বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডার। সেই অনুষ্ঠানেই আমন্ত্রিত ছিলেন বিমল গুরুং ও রোশন গিরি। মনে করা হচ্ছে , নাড্ডার ছেলের বিয়ের অনুষ্ঠানের ছবি দিয়ে আসলে মমতার দিকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছেন গুরুংরা। বিনয়  তামাংকে মোর্চার প্রধানের পদে বসানো নিয়ে মুখ্য়মন্ত্রীর সঙ্গে বিরোধ বাধে তাদের। সোশ্যাল মিডিয়ায় ছবি দিয়ে তারা  লিখেছেন- বিয়ের অনুষ্ঠানে দুজনেই হাজির ছিলাম। যদিও এ নিয়ে বিজেপির কোনও প্রতিক্রিয়া দেয়নি।