গঠিত হয়েছে নতুন মন্ত্রীসভা। শুরু থেকেই চালিয়ে খেলছেন মন্ত্রীসভায় কংগ্রেসের প্রধান দলনেতা অধীর চৌধুরী। অধিবেশনের প্রথম দিনেই কবিতা পড়ে উপস্থিত সাংসদদের মন জিতে নিলেন অধীর। জুটল সাবাশি, বইল হাততালির ঝড়।

এদিন লোকসভা অধিবেশন শুরু হতেই স্পিকারকে স্বাগত জানানো হয়। এবার স্পিকার পদে নির্বাচিত হলেন ওম বিড়লা। তাঁর নাম প্রস্তাব করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সেই প্রস্তাবে শিলমোহর দেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। স্পিকারের উদ্দেশ্যে স্বাগতভাষণে অধীর বলেন, প্রধানমন্ত্রী সংসদ কক্ষের বাইরে বলেছেন লোকসভায় কোনও শাসক বিরোধী থাকবে ন। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করতে সবচেয়ে বেশি সদর্থক ভূমিকা নিতে হবে স্পিকারকেই। তাঁর নিরপেক্ষ ভূমিকাই লোকসভাকে সুন্দর ও সংহত করবে। তিনি এই কথা বলতে বলতেই হাততালির ঝড় ওঠে সংসদে।

এখানে শেষ নয়, বরং শুরু। লোকসভার নতুন অধ্যক্ষের উদ্দেশ্যে কবিতাও নিবেদন করলেন অধীর। বললেন, "খুদা সে কেয়া মাঙ্গু তেরে বাস্তে/ সাদা খুশিয়া ভরা রহে তেরে রাস্তে।" জয় শ্রীরাম, জয় মাকালী ইত্যাদির ভীড়ে অধীর বুঝিয়ে দিলেন ফের, তিনি অন্য রকম। প্রসঙ্গত গেরুযা ঝড়ে গোটা বাংলা যখন আক্রান্ত, তখন মুর্শিদাবাদে নিজের গড় আগলেছেন অধীর চৌধুরী। ভোটচুরি রুখতে ভোটের দিন আটপৌঢ়ে পোশাকে গোটা বহরমপুর চষে বেড়িয়েছেন এই দাপুটে নেতা। তাঁর ফলও পেয়েছেন। দলে গুরুত্ব বেড়েছে। এখন আর বাংলা নয়, জাতীয় স্তরের কংগ্রেস নেতা তিনি। রাহুল গান্ধীর বিকল্প হিসেবে তাঁকে লোকসভার দলনেতা নির্বাচন করে দল বুঝিয়ে দিয়েছে কতটা গুরুত্বপূর্ণ তিনি। অধীর নিজেও প্রথম থেকই হাত খুলে খেলছেন।