আলিপুর চিড়িয়াখানায় খুশির আমেজ। একের পরে এক নতুন অতিথির আগমণে গোটা চিড়িয়াখানা যেন আহ্লাদে আটখানা। এবার সেই তালিকায় যোগ দিল নয়ন এবং শিশির। শিলিগুড়ির বেঙ্গল সাফারি থেকে ২ টি  চিতাকে নিয়ে আসা হল  আলিপুর চিড়িয়াখানায়, তাদের একটি ছেলে এবং একটি মেয়ে। ছেলেটির নাম শিশির, মেয়েটির নাম নয়ন। এই নিয়ে আলিপুর চিড়িয়াখানায় লেপার্ডের সংখ্যা দাঁড়াল তিনটে। লেপার্ডদুটির জন্ম হয় গত বছর মে মাসে।

আরও পড়ুনঃ ২৭ বছর পরে সিংহের বাচ্চা হল আলিপুর চিড়িয়াখানায়, দেখুন ভিডিও
বাঘের বিয়ে দেবে চিড়িয়াখানা, পাত্র ভীন রাজ্যের

চিড়িয়াখানা সূত্রে জানানো হচ্ছে, পরিবর্তিত পরিবেশে মানিয়ে নিতে লেপার্ডদের পর্যবেক্ষণে রাখা হবে। জুলাইয়ের শেষ কিংবা অগস্টের প্রথম দিকে দর্শকদের দেখার জন্য ছাড়া হবে। প্রতি বছর শীতে চিড়িয়াখানায় মানুষের ঢল নামে। চিড়িয়াখানার তরফেও কর্তৃপক্ষ চেষ্টা করে নতুন চমক দেওয়ার। আগামী শীতে সেই উপহারের তালিকা বেশ দীর্ঘ। দিন কয়েক আগেই মধ্যপ্রদেশের পান্না থেকে চিড়িয়াখানায় আসে একটি সাদা বাঘ। সাদা বাঘটির বয়েস পাঁচ। তার সঙ্গেই  চিড়িয়াখানায় নতুন অতিথি হয়ে এসেছে ৬ টি কৃষ্ণসার হরিণ (৩টি ছেলে, ৩টি মেয়ে)। এর সঙ্গে এসেছে দুটি সম্বর হরিণও। এসেছে অ্যনাকোণ্ডাও। গত ২৮ জুন চিড়িয়াখানায় জন্মায় তিনটি সিংহ শাবক।  শেষবার ১৯৯২-এ সিংহ শাবক জন্মের সাক্ষী ছিল আলিপুর চিড়িয়াখানা। সিংহ দম্পতি শ্রুতি ও বিশ্বাসের সন্তান হওয়ায় চিড়িয়াখানায় সিংহের সংখ্যা দাঁড়ায় পাঁচে। কর্তৃপক্ষের মতে, আরও বেশ কিছু নতুন চমক থাকবে দর্শকদের জন্যে। প্রতিবছর শীতের উৎসবের দিনগুলিতে চিড়িয়াখানায় ভীড় হয়। কখনও কখনও সেই সংখ্যাটা লাখও ছাড়িয়ে যায়। কর্তৃপক্ষের মতে এযাবৎ রেকর্ড রয়েছে এক লক্ষ লোকের। ভবিষ্যতে আরও অনেকটাই বাড়বে সেই সংখ্যাটা।