আজ  শনিবার ইতিমধ্য়েই দ্বিতীয়বারের জন্যে  বাজেট  পেশ করলেন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন ৷ এদিনের বাজেটে তিনি জানিয়েছেন বৃদ্ধির হার বেড়েছে ৷ ২০১৪ থেকে ২০১৯ সাল অবধি বৃদ্ধির হার ছিল গড়ে ৭.৪% ৷ ২৭ লক্ষ মানুষ দারিদ্রসীমার বাইরে এসেছেন বলে দাবি অর্থমন্ত্রীর ৷ বিশ্বের পঞ্চম বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ ভারত ৷ সরকারের ঋণের বোঝাও কমেছে বলে দাবি নির্মলা সীতারমনের ৷

আরও পড়ুন, কলকাতায় যাদুঘরের জন্য় বাড়তি বরাদ্দ, তামিলনাড়ুতেও প্রত্নতাত্ত্বিক সংগ্রহশালা

এদিন দূষণ নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা করেন অর্থমন্ত্রী ৷ বড় শহরগুলিতে দূষণমুক্ত হওয়ার জন্য ৪৪০০ কোটি টাকার খরচের প্রস্তাব  অর্থমন্ত্রীর ৷ আগামী তিন বছরে সবার জন্য স্মার্ট প্রিপেড মিটার ৷ এর পাশাপাশি ধন লক্ষ্ণী যোজনার ঘোষণা ৷ পঞ্চায়েত ও গ্রামোন্নয়নে ১.২৩ লক্ষ কোটি ৷ ২৮ হাজার ৪০০ কোটির বিদেশী বিনিয়োগ হয়েছে ৷ এছাড়াও  স্বচ্ছ ভারত প্রকল্পে ১২ হাজার ৩০০ কোটি ৷ জল জীবন প্রকল্পে ৩.৬ লক্ষ কোটি বরাদ্দ করা হয়েছে ৷ 

আরও পড়ুন, বাজেটের দিনেও ব্যাঙ্ক ধর্মঘট, চরম ভোগান্তির আশঙ্কা গ্রাহকদের

প্রতি শীতে আমরা অতিরিক্ত বায়ু দূষণের মারাত্মক সমস্যার মুখোমুখি হই। ভারতে সব থেকে দূষিত স্থানগুলির মধ্য়ে পড়ে দিল্লি, কানপুর, ফরিয়াবাদ, গয়া, পাটনা, শ্রীনগর, নয়ডা এবং গুরগাঁও।প্রায় সমস্ত শহর ধোঁয়াশায় আচ্ছাদিত এবং বায়ুর গুণমানগুলি বিপজ্জনক স্তরে পৌঁছে যায়। দূষণের স্তরটি এত মারাত্মক আকার ধারণ করে যে বেশিরভাগ বড় শহরগুলি দম ফেলার জন্য হাঁপিয়ে ওঠেন আমজনতা। প্রকৃতপক্ষে, কণা পদার্থের উপস্থিতির ভিত্তিতে  বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরগুলিতে ভারতবর্ষ রয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য় সংস্থা-র   অনুমান   যে বায়ু দূষণ এক বছরে প্রায় ৭ মিলিয়ন মৃত্য়ু ডেকে আনে। তাই আগামীদিনে দেশের শহরগুলি থেকে দূষণ কমাতে অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন-র ৪৪০০ কোটি টাকার বাজেট যথেষ্ট সুদূরপ্রসারি।