ফের বিজেপির রাজ্য সভাপতি পদে দিলীপ ঘোষ। এই নিয়ে দ্বিতীয়বার তিন বছরের জন্য রাজ্য় বিজেপির সভাপতির চেয়ারে বসলেন তিনি৷ বৃহস্পতিবার সর্বভারতীয় বিজেপির অন্যতম সাধারণ সম্পাদক মুরলীধর রাও আসেন কলকাতায়। ন্যাশনাল লাইব্রেরিতে আনুষ্ঠানিকভাবে দিলীপ ঘোষের নাম সভাপতি পদে  ঘোষণা করেন তিনি। 

ফের একমঞ্চে মোদী-মমতা, কোন প্রতিষ্ঠান জানাচ্ছে আমন্ত্রণ

বিরোধীরা তো বটেই তাঁর বিতর্কিত মন্তব্য় নিয়ে সম্প্রতি ঘরেই সামালোচিত হচ্ছিলেন দিলীপ ঘোষ। কদিন আগেই বিজেপির আসানসোলের সাংসদ বাবুল সুপ্রিয় দিলীপবাবুকে নিয়ে দায়িত্বজ্ঞানহীন বলে মন্তব্য় করেন । এরপরই দলের একাংশেই দিলীপ ঘোষকে নিয়ে নেতিবাচক প্রচার  শুরু হয়ে যায়। যদিও সেসবে পাত্তা দিল না বিজেপির  কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। রাজ্য়ে দল যে দিলীপের নেতৃত্বেই এগোবে তা বুঝিয়ে দিল গেরুয়া ব্রিগেড। সেকারণে ফের একবার দিলীপের হাতেই রাজ্য় বিজেপির  ব্যাটন তুলে দিলেন  সর্বভারতীয় বিজেপির অন্যতম সাধারণ সম্পাদক মুরলীধর রাও।

'বিষ ছড়ানো নেতারা ঘরে', কাশ্মীর নিয়ে দিদিকে পাল্টা বাবুলের

রাজ্য় রাজনীতির পরিসংখ্যান বলছে, ২০১৫ সালে আরএসএস থেকে বিজেপিতে যোগ দেন দিলীপবাবু। সেই বছরই রাজ্য সভাপতি পদে তাঁকে বসায় দল। এরপর একে একে ২০১৬ সালে বিধানসভা নির্বাচনে খড়্গপুর থেকে নির্বাচিত হন তিনি। পরে ২০১৯ -এ মেদিনীপুরের সাংসদ নির্বাচিত হন। রাজ্য়  রাজনৈতিক মহল বলছ, দিলীপ ঘোষের আমলেই রাজ্যে বিজেপির সংগঠন মজবুত হয়েছে। 

কোন মাপকাঠিতে দেশের সেরা প্রধানমন্ত্রী, মোদী প্রশ্নে 'জর্জরিত' বেলুড়

দিলীপ ঘোষ পদে বসার পর থেকেই রাজ্য়ে নজিরবিহীন ফল করেছে বিজেপি৷ বঙ্গ বিজেপির পারফরম্যান্সে সন্তুষ্ট মোদি-অমিত শাহরা।  বুধবার রাজ্য দফতরে এসেছিলেন কেন্দ্রীয়মন্ত্রী তথা বিজেপির পর্যবেক্ষক কিরেন রিজিজু। তাঁকে মনোনয়নপত্র জমা দেন দিলীপ। দিলীপবাবু ছাড়া অন্য কেউ মনোনয়ন দাখিল না করায় প্রমাণ হয়ে যায় তিনিই বিজেপির পরবর্তী সভাপতি। এদিন ছিল কেবল তাতে সিলমোহর দেওয়ার পালা।