তৃণমূলের 'বাংলার গর্ব মমতা' প্রচারকে বেগ দিতে প্রথমেই আক্রমণে নামল বিজেপি। সরাসরি রাজ্য়ে তৃণমূল নেত্রীর সততা নিয়ে প্রশ্ন তুললেন বিজেপি নেতা জয়প্রকাশ মজুমদার। মমতা সততার নন, সারদার প্রতীর  বলে খোঁচা দিলেন এই বিজেপি  নেতা। 

করোনা আক্রান্ত দেশে যাওয়া যাবে না, অধ্যাপক-গবেষক-ছাত্রদের উপর জারি হল নিষেধাজ্ঞা

পুরসভার ভোটকে কেন্দ্র করে ইতিমধ্য়েই প্রচারে নেমেছে তৃণমূল। নেতাজি ইন্ডোরের সভায় বাংলার গর্ব মমতা ক্যাম্পেন চালু করেছে প্রশান্ত কিশোর। যা নিয়ে মমতাকে কটাক্ষ করতে ছাড়লেন না জয়প্রকাশ। বিজেপি নেতার দাবি,আগে রাস্তায় বেরোলেই সততার প্রতীক মমতা কাটআউট লাগানো থাকত। খোদ তৃণমূলের কর্মীরা মমতাকে সততার প্রতীক বলে প্রচার চালাতেন। কিন্তু সারদার পর আর মমতার নামে কেউ সততার প্রতীক লেখেন না। ঠিক তেম নই বাংলার গর্ব মমতা ট্য়াগ লাইনও মাঠে মারা যাবে।

করোনা আতঙ্কে বিকোচ্ছে না মুরগী, ক্রেতার চোখ টানতে পেঁয়াজ ফ্রি

এদিন সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে জয়প্রকাশ বলেন, বাড়ির শিশুদেরও বাংলার গর্ব মমতা বললে তারা বিশ্বাস করবে না। এখন এ রাজ্য অনেক কিছুতেই পিছিয়ে আছে। রাজ্যের মানুষকে শিক্ষা, স্বাস্থ্য আর কাজের খোঁজে ভিন রাজ্যে যেতে হচ্ছে। তৃণমূল আসলে হিন্দু বিরোধী। এ রাজ্য়ে সংখ্যালঘু ভোট ব্যাঙ্কের কথা ভেবে সিএএ, এনআরসি-র বিরোধিতা করেছে তৃণমূল। 

ফের মেট্রোয় ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা তরুণীর, ব্যহত মেট্রো পরিষেবা

সম্প্রতি দিল্লির হিংসা পরিকল্পিত গণহত্যা বলে মন্তব্য় করেছিলেন মুখ্য়মন্ত্রী মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়। এর জন্য় বিজেপি ব্রিগেডকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছিলেন তৃণমূল নেত্রী।  এবার মমতার সেই মন্তব্য়ের পাল্টা দিলেন এই বিজেপি  নেতা। জয়প্রকাশ বলেন,  দিল্লির সাম্প্রতিক হিংসার  সূচনা হয়েছিল এ রাজ্যেই। নাগরিকত্ব বিলে রাষ্ট্রপতির সইয়ের পরও পশ্চিমবঙ্গে টানা  হিংসা চলেছে। পুলিশ আজও সেই হিংসায় কাউকে গ্রেফতার করেনি।
 
এই বলেই অবশ্য় থেমে থাকেননি জয়প্রকাশবাবু। তাঁর দাবি, নিজের ভাবমূর্তি দিয়ে আর কাজ হচ্ছে না। এখনে বিজেপিকে আটকাতে প্রসান্ত কিশোরের দ্বারস্থ হয়েছেন তিনি। এই ঘটনাই প্রমাণ করে রাজ্য়ে মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়ের জনভিত্তির কী হাল।