করোনা থাবা বসিয়েছে ভারতে। প্রতিদিনিই বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। এই পরিস্থিতিতে এই মারণ রোগ সংক্রমণ আটকাতে সতর্কতামূলক পদক্ষেপ নিল কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়। করোনা আক্রান্ত দেশগুলিতে যাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনও অধ্যাপক, গবেষক ও ছাত্র যাতে যেতে না পারে সেবিষয়ে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হল। 

রাজ্য ও কেন্দ্রের সতর্কতামূলক পদক্ষেপ হিসেবেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার দেবাশীষ দাস। বুধবারই এই বিষয়ে নির্দেশিকা জারি করেছে  বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

আরও পড়ুন: গুরগাঁওয়ে করোনায় আক্রান্ত হলেন পেটিএম কর্মী, আতঙ্কে বন্ধ করা হল ই-ওয়ালেট সংস্থার দফতর 

বিশ্ববিদ্যালয়ের বিদেশি ছাত্রদের জন্য জারি হয়েছে একাধিক বিধিনিষেধ। এই মুহুর্তে কোনো বিদেশি ছাত্র কলকাতা ছাড়তে পারবেন না। তেমনি বিদেশি পড়ুয়াদের মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। 

দেশে এখনও পর্যন্ত ২৯ জন করোনা আক্রান্তের সন্ধান পাওয়া গিয়েছে।  যদিও এরাজ্যে এখনও পর্যন্ত মারণ ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার কোনও খবর নেই। তবে আগে থেকেই সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে এই পদক্ষেপ নিল কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়। 

আরও পড়ুন: বিশ্ব জুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে মারণ করোনা, আক্রান্ত ৯৫,০০০ বেশি মানুষ

বাংলাদেশ, জাপান, চিন সহ দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বিভিন্ন দেশ থেকে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে আসেন বহু পড়ুয়া। মূলত গবেষণা করতেই দেখা যায় বিদেশি পড়ুয়াদের। সেই কারণেই বিদেশি পড়ুয়াদের নিয়ে সর্তক বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। আর তাই বিদেশি পড়ুয়াদের উপর একাধিক বিধিনিষেধ জারি করা হল।   বিদেশি পড়ুয়ারা যে হোস্টেলগুলোতে থাকেন সেখানে  যাতে অন্যান্য পড়ুয়ারা দূরত্ব বজায় রাখেন সে বিষয়েও মৌখিক নির্দেশ দেওয়া় হয়েছে। প্রয়োজনে বিদেশি পড়ুয়াদের ক্লাস বন্ধ  করা হতে পারে বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন রেজিস্ট্রার। 

তবে শুধু বিদেশি ছাত্র নয় কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কোন গবেষক,পড়ুয়া বা অধ্যাপক আপাতত কোন সেমিনার বা গবেষণার কাজে বিদেশে যেতে পারবেন না। এই  প্রসঙ্গে রেজিস্ট্রার জানিয়েছেন " আমরা আপাতত কোন অধ্যাপক বা গবেষক কে এনওসি দিচ্ছি না।"  বিদেশ থেকেও কোনো অধ্যাপককে নিয়ে এসে কোন সেমিনার করা যাবে না বলেও জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়় কর্তৃপক্ষ।