ভাটপাড়ায় বিজেপির মিছিলকে ঘিরে ধুন্ধুমার কাণ্ড। বিজেপি-তৃণমূল সংঘর্ষ বোমা গুলির লড়াই।  ঘটনাস্থলে বিশাল পুলিশবাহিনী। জানা গিয়েছে, খণ্ডযুদ্ধ শুরু হয়েছে পুলিশের সঙ্গে। 

বিজেপির  দাবি, পূর্বনির্ধারিত কর্মসূচি অনুযায়ী শনিবার বিকেল চারটের সময় জগদ্দল এর অকল্যান্ড জুটমিল থেকে ভাটপাড়া মোড় পর্যন্ত মিছিল বের করে বিজেপি। সেখানে রাজ্যে আইন শৃঙ্খলার চূড়ান্ত অবনতি ছাড়াও ছিল হেমতাবাদের বিজেপি বিধায়কের খুনে সিবিআই তদন্তের দাবি। এছাড়াও মিছিল থেকেই  বিজেপি কর্মীদের পুলিশি হেনস্থার প্রতিবাদে, রাজ্যে সর্বস্তরের প্রশাসনিক ব্যর্থতা ও আমফান,রেশন দুর্নীতির প্রতিবাদে সরবা হন বিজেপির কর্মীরা। 

সেইমতো এলাকায় উপস্থিত হন ব্যারাকপুরের বিজেপি সাংসদ তথা  বিজেপির রাজ্য সহসভাপতি অর্জুন সিং,রাজ্য সম্পাদক ফাল্গুনি পাত্র, ব্যারাকপুর সাংগঠনিক জেলা সভাপতি উমা শঙ্কর সিং, ভাটপাড়ার বিধায়ক পবন কুমার সিং সহ আরও অনেক নেতা কর্মী সমর্থকরা । কিন্তু মিছিল শুরু হওয়ার আগেই শুরু হয় ব্যাপক বোমাবাজি। বোমার আঘাতে এক কিশোর গুরুতর জখম হয় তার অবস্থা আশঙ্কাজনক। 

এ বিষয়ে বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং-এর অভিযোগ বিজেপির রালি-কে বন্ধ করবার জন্যই তৃণমূলের দুষ্কৃতীরা চক্রান্ত করে এই বোমাবাজি করছে।  শান্ত পরিবেশকে অশান্ত করে তুলছে। ব্যারাকপুরের তৃণমূল কংগ্রেসের পর্যবেক্ষক সুবোধ অধিকারীর পাল্টা অভিযোগ,বহিরাগতদের নিয়ে এসে অর্জুন সিং এলাকায় হামলা চালাচ্ছে। এটা বিজেপির গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের লড়াই। এর সঙ্গে তৃণমূল কোনোভাবে জড়িত নয়। 

জানা গিয়েছে, শুক্রবার ব্যারাকপুরের বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিংয়ের বাড়িতে পুলিশ তল্লাশি করতে গিয়েছিল বলে অভিযোগ। কোনও রকম পরোয়ানা ছাড়া তল্লাশি করতে চাইলে তাঁর ছেলে তথা ভাটপাড়ার বিধায়ক পবন সিংয়ের সঙ্গে পুলিশের বচসা বাধে।