পার্শ্বশিক্ষকদের আন্দোলন নিয়ে আদালতে মুখ পুড়ল রাজ্য সরকারের। সল্টলেকে আন্দোলনকারীদের অনশন চালিয়ে যাওয়ার অনুমতি দিল কলকাতা হাইকোর্ট।  বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যা ও বিচারপতি কৌশিক চন্দের ডিভিশন বেঞ্চের নির্দেশ, সেন্ট্রাল পার্কের ২০ মিটারের মধ্য়ে অবস্থান বিক্ষোভ বা অনশনে বসতে পারবেন না পার্শ্বশিক্ষকরা। এমনকী, এলাকায় যান চলাচলে যাতে বিঘ্ন না ঘটে, সেদিকেও নজর রাখতে হবে আন্দোলনকারীদেরই।

আরও পড়ুন: পার্শ্বশিক্ষকদের আন্দোলন নিয়ে সংসদে সোচ্চার লকেট-বাবুল, পাল্টা সুদীপেরও

সল্টলেক বিকাশভবনের কাছে যখন ধরনায় বসার পরিকল্পনা করেন পার্শ্বশিক্ষকরা, তখন থেকে আইনি জটিলতার সূত্রপাত্র। প্রশাসনের অনুমতি না পেয়ে কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন আন্দোলনকারীরাই।  সল্টলেকে বিকাশভবনের ১০০ মিটার দূরে শর্তসাপেক্ষে ৩০০ জন পার্শ্বশিক্ষককে ধরনা বসার অনুমতি দেয় আদালত।  হাইকোর্ট জানিয়ে দেয়, আরও বেশি সংখ্যক পার্শ্বশিক্ষক যদি আন্দোলনে শামিল হতে চান, সেক্ষেত্রে তাঁদের ধরনায় বসতে হবে সেন্ট্রাল পার্কের কাছে। শুধু তাই নয়, আন্দোলনকারীদের শান্তিপূর্ণ অবস্থান ও পুলিশকে সংবেদনশীল হওয়ারও নির্দেশ দেওয়া হয়।  আদালতে নির্দেশ মেনেই বেতন কাঠামো-সহ ৪ দফা দাবিতে ধরনা শুরু করে পার্শ্বশিক্ষকরা।  ধরনা ছেড়ে এখন আবার অনশন বসেছেন আন্দোলনকারীরা। ধরনা চলছে সেন্ট্রাল পার্কের কাছেই। 

আরও পড়ুন: আমরণ অনশনে পার্শ্বশিক্ষক, সবপক্ষকে আলোচনার বসার আহ্বান রাজ্যপালের

শুক্রবার ফের পার্শ্বশিক্ষকদের মামলাটি ওঠে কলকাতা হাইকোর্টে। শুনানিতে সেন্ট্রাল পার্কে যাতায়াতে অসুবিধা ও ট্রাফিক জ্যামের কারণ দেখিয়ে আদালতের কাছে পার্শ্বশিক্ষকদের অনশনমঞ্চ সরিয়ে দেওয়ার আর্জি জানান সরকারি পক্ষের আইনজীবী।  কিন্তু সেই আবেদন খারিজ করে দেয় কলকাতা হাইকোর্ট।