অতিরিক্ত বিল নিয়ে ফের অস্বস্তিতে সিইএসসি। এবার হাইকোর্টে বিল নিয়ে জবাবদিহি  করতে হবে তাদের। লকডাউনে মিটার রিডিং না নিয়ে কী  করে  গ্রাহকদের কাছে অতিরিক্ত বিল পাঠানো হল, তা জানতে চেয়েছে হাইকোর্ট। হলফনামা দিয়ে  প্রধান বিচারপতি টিবি রাধাকৃষ্ণন এবং বিচারপতি অরিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডিভিশন বেঞ্চের কাছে জবাব দিতে হবে সিইএসসি-কে।

মিটার রিডিং না  নিয়ে কেন গড়ে বিল  পাঠানো হয়েছে, এই প্রশ্ন নিয়ে কলকাতা হাইকোর্টে জনস্বার্থ মামলা করেন রজনীশ কলাবতী নামের এক ব্যক্তি। ওই ব্যক্তি দাবি করেন,  গ্রাহকদের মোবাইলে যে বিল পাঠানো হচ্ছে তা অসম্পূর্ণ। তার মধ্য়ে বিস্তারিত তথ্য় দেওয়া হচ্ছে না। এছাড়াও গড়ে বিল বানানোর জন্য় অতিরিক্ত বিলের বোঝা চাপানো হয়েছে গ্রাহকদের ওপর। সব শোনার পর  সিইএসসিকে এ বিষয়ে হলফনামা দায়ের‌ করার নির্দেশ দিয়েছে ডিভিশন বেঞ্চ। মামলার পরবর্তী শুনানি ৫ অগস্ট।
 
রাজ্য়ের সাম্প্রতিক অতীত বলছে, কদিন আগেই গ্রাহকদের চাপে পড়ে অতিরিক্ত বিল জমার সিদ্ধান্ত স্থগিত করেছে সিইএসসি।  গত দু'মাসের বকেয়া বিদ্যুতের ইউনিটের বিল আপাতত মেটাতে হবে না বলেছে তারা। যদিও এ নিয়ে সব বিষয় খোলসা করেনি সংস্থা। এই দুই মাসের অতিরিক্ত বিল কি দিতেই হবে না,তা নিয়ে প্রশ্ন করেছে গ্রাহকরা। কোম্পানির টোল ফ্রি নম্বর বার বার বেজে গেলেও এখনও তার উত্তর মেলেনি। এদিকে নতুন বিল না আসা পর্যন্ত বিল জমা দিতে নিষেধ করেছেন  বিদ্যুৎমন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়।