'শরীর খারাপ হলেই ডাক্তার দেখান। বিদেশ থেকে ফিরলে আলাদা থাকুন।' করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে ফের বার্তা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর বক্তব্য, 'করোনা নিয়ে কেউ কেউ গুজব ছড়ানোর চেষ্টা করছেন, কান দেবেন না। নিয়ম সবার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য।' এদিন সরকারি কর্মচারীদের বিকেল চারটেতেই ছুটি দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। 

আরও পড়ুন: করোনা রুখতে বিদেশ ফেরৎদের খুঁজে বার করতে হবে রাজ্য়কেই, নির্দেশ কেন্দ্রের

করোনা সন্দেহে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন অনেকেই। মারণ ভাইরাস এ রাজ্যেও ঢুকে পড়বে না তো? আতঙ্কে ছিলেন সকলেই। করোনা এবার থাবা বসাল কলকাতায়ও। রাজ্যের পদস্থ প্রশাসনিক আধিকারিকের ছেলের শরীরে মিলল রোগের জীবাণু।  জানা গিয়েছে, গত রবিবার ইংল্যান্ড থেকে শহরে ফেরেন করোনা আক্রান্ত ওই যুবক। নিয়মমাফিক তাঁকে বাড়িতেই আলাদা থাকার পরামর্শ দিয়েছিলেন চিকিৎসক। সেই পরামর্শ তো মানেনইনি, উল্টে কলকাতায় ফিরে মায়ের সঙ্গে ওই তরুণ বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে বেড়িয়েছেন বলে অভিযোগ। শেষপর্যন্ত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় যখন বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে ওই তরুণের শারীরিক পরীক্ষা করা হয়, তখন করোনা ভাইরাস ধরা পড়ে। 

আরও পড়ুন: করোনা নিয়ে গুজব ছড়ালেই শাস্তি পেতে হবে, হুঁশিয়ারি কলকাতা পুলিশ কমিশনারের

বুধবার সেই প্রসঙ্গ তুলে ওই তরুণের দায়িত্বজ্ঞান আচরণের তীব্র সমালোচনা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বলেন, 'স্কুল-কলেজে ছুটি পড়ে গিয়েছে।  বিদেশ থেকে অনেকেই দেশ ফিরছেন। বিদেশ থেকে এলেই স্বেচ্ছায় আইলোশনে চলে যান। ১৫ থেকে ২৭ দিন আলাদা থাকুন'। মুখ্যমন্ত্রীর স্পষ্ট বার্তা, বিদেশ থেকে ফিরেই পার্ক চলে গেলাম, শপিং মলে চলে গেলাম, আরও ৫০ জন আক্রান্ত হয়ে গেল, এটা বরদাস্ত করা হবে না। নিয়ম সকলের ক্ষেত্রে প্রযোজ্যই।  এদিকে আবার করোনা আক্রান্ত ওই যুবকের মা নাকি নবান্নেও গিয়েছিলেন। সূত্রের খবর তেমনই। ফলে আতঙ্ক আরও বেড়েছে।  বুধবার স্বেচ্ছায় সস্ত্রীক হোম কোয়ারেন্টাইনে যাওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন স্বরাষ্ট্রসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়।