কয়েকদিন আগে কলকাতায় এসে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সমর্থনের কথা জানিয়েছেন দীর্ঘদিন অন্তরালে থাকা বিমল গুরুং। আর তারপরই সম্পূর্ণ বদলে গিয়েছে পাহাড়ের রাজনৈতিক সমীকরণ। শান্ত পাহাড়ে ফের শুরু হয়েছে মিছিল-মিটিং। মিছিল মিটিং শুরু করেছেন বিনয় তামাং অনিক থাপা গোষ্ঠীর সমর্থকরা। এই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে ফের উত্তপ্ত হতে পারে দার্জিলিং। তাই পরিস্থিতি সামাল দিতে ময়দানে নামতে পারেন মুখ্যমন্ত্রী এমনটাই মনে করা হচ্ছে। সূত্রের খবর আগামী সপ্তাহেই বিনয় তামাং এবং অনিক থাপাদের নিয়ে বৈঠক শুরু করবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সূত্রের খবর নবান্নে হবে এই বৈঠক। এই বৈঠকের জন্য ডেকে পাঠানো হয়েছে বিনয় তামাং এবং অনিক থাপাদের। 

যদিও এই বৈঠক প্রসঙ্গে এখনই মুখ খুলতে নারাজ বিনয় তামাং। বৈঠক হতে পারে এমন একটা ইঙ্গিত দিয়ে রাখলেও তিনি জানিয়েছেন রবিবার বিকাল এর মধ্যে নিশ্চিত করে তিনি বলতে পারবেন এই বৈঠক প্রসঙ্গে। তবে পাহাড়ে এই পরিস্থিতিতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যে হাত গুটিয়ে বসে থাকবেন না তা একেবারেই পরিষ্কার। 

আর কয়েক মাস পরেই রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন। পাহাড় অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ তৃণমূল কংগ্রেসের কাছে। সে কারণেই কৌশলী পদক্ষেপ হিসেবে বিমল গুরুং কাছে টেনেছে তৃণমূল। কিন্তু পাহাড় উত্তপ্ত হলে পরিস্থিতি প্রতিকুল হয়ে দাঁড়াতে পারে। সে কারণে আগাম কোন পদক্ষেপ নিতে চাইছে তৃণমূল শিবির। সেই জায়গা থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে বিনয় তামাংদের যে বৈঠক হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে তা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ তা বলার অপেক্ষা রাখে না। 

আরও পড়ুন-সুন্দরবনে কাঁকড়া ধরতে গিয়ে বাঘের মুখে, ফের হামলার শিকার এক মৎসজীবী

অন্যদিকে এই পরিস্থিতিতে পাহাড়ে রয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল। একমাস পাহাড়ে থাকবেন তিনি। দিল্লিতে সাংবাদিক সম্মেলন করে তিনি আগেই জানিয়েছেন, পাহাড়ের মানুষের সমস্যার কথা শুনবেন তিনি। দেখা করবেন অনেকের সঙ্গে। যখন ধীরে ধীরে বদলাচ্ছেন পাহাড়ের পরিস্থিতি তখন রাজ্যপালের পাহাড় সফর বাড়তি মাত্রা যোগ করতে পারে কিনা সেটাই এখন দেখার।