কোভিড ভ্য়াকসিন নিলে এবার মোদীর বদলে  মমতার ছবি দেওয়া সার্টিফিকেট পাবেন রাজ্যবাসী। রাজ্যের তরফে টিকার শংসাপত্রে থাকবে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্য়োপাধ্য়ায়ের ছবি। রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের তরফে দেওয়া ওই শংসাপত্রে মুখ্যমন্ত্রীর বার্তায় পাশাপাশি লেখা থাকবে, 'সজাগ থাকুন, নিরাপদ থাকুন।'

আরও পড়ুন, বদলে দিলেন সম্পর্কের সংজ্ঞা, কোভিড আক্রান্ত শ্বশুরকে পিঠে নিয়ে চিকিৎসা করাতে গেলেন বৌমা 

 

 

 কো-উইন অ্যাপে ভ্যাকসিনের সার্টিফিকেটে মোদীর ছবি থাকবে। রাজ্য সরকার ১৮ থেকে ৪৪ বছরের বয়সীদের জন্য স্ব-উদ্যোগে যে ভ্যাকসিন করছে সেখানে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি থাকছে। কলকাতা পুরসভার উদ্যোগেও ভ্যাকসিনেশন চলছে। রাজ্য সরকারের উদ্যোগে টিকাকরণ হবে তাতে মমতার ছবি। এর জন্য রাজ্য সরকার আলাদা একটি অ্যাপে নাম নথিভুক্ত করছে। এই অ্যাপ থেকেই মঞ্জুর হওয়া টিকাকরণ সার্টিফিকেটে মমতার ছবি থাকছে। তবে কেন্দ্রের শংসাপত্র ভ্য়াকসিন যিনি নিচ্ছেন, তাঁকে একটা ইউনিক নম্বর দেওয়া হয়। রাজ্যের শংসাপত্রে এই ইউনিক নম্বর থাকছে না। উল্লেখ্য, আগামী সপ্তাহ থেকেই শহরের ১৮ বছরের উর্ধ্ব নাগরিকদের ভ্য়াকসিন দেওয়া শুরু হবে।  এমনটাই জানিয়েছে কলকাতা পুরসভা। এই মুহূর্তে শহরের ৪৫ উর্ধ্ব ব্যাক্তিদের ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছে কলকাতা পুরসভার তরফে। এই অবধি শুধু কলকাতাক ১৪৪ ওয়ার্ডে পুরসভার তরফে প্রায় ২০ লক্ষ মানুষকে সরকারিভাবে ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন, নেই ছাত্র-ছাত্রীর কলবর, শহরের স্কুলের বন্ধ ক্লাসরুমেই এবার আস্ত 'কোভিড কেয়ার ইউনিট'  

অপরদিকে রাজ্য সরকারের এই পদক্ষেপে মোটেই খুশি নয় গেরুয়া শিবির। বিজেপি এর সমালোচনা করেছে। তাঁদের অভিযোগ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বোঝানোর চেষ্টা করছেন বাংলার মানুষ আগে বাঙালি তারপরে ভারতীয়।  ক্ষোভ উগরে দিয়ে বিজেপি নেতা শমীক ভট্টাচার্য জানিয়েছেন, তৃণমূল কংগ্রেস প্রধানমন্ত্রী পদের কোনও সম্মান করে না। আমাদের রাজ্যের সরকার এমন ব্যবহার করছে, যেন তাঁরা ভারতে নয়, অন্য দেশে বসবাস করে। তাঁরা মানতেই রাজি নয় যে পশ্চিমবঙ্গ ভারতেই একটি অঙ্গরাজ্য়। তাই তাঁরা এসব করছে।'