মাত্র দু'ঘণ্টার ব্যবধানে বদলে গেল রাজ্য়ের করোনার পরিসংখ্য়ান। বিকেলে রাজ্য়ের বিশেষজ্ঞ কমিটি জানিয়েছিল,গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ১৬ জন আক্রান্ত হয়েছেন। ফলে রাজ্য়ে করোনা-আক্রান্তের সংখ্যা বিকেল পর্যন্ত ছিল ৫৩। কমিটির হিসাবে অনুযায়ী মৃতের সংখ্যা ৭ জন। 

কিন্তু সন্ধে গড়াতেই করোনা নিয়ে নতুন পরিসংখ্য়ান দিল রাজ্য় সরকার। যেখানে রাজ্য়ের মুখ্যসচিব রাজীব সিংহের পরিসংখ্যান বলছে, রাজ্যে বর্তমানে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৩৪। করোনায় মারা গিয়েছেন ৩ জন। রাজ্য়ের যুক্তি অনুযায়ী, এই আক্রান্ত ৫৩ জনের মধ্য়ে ইতিমধ্য়েই তিনজন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গিয়েছেন। বাকি  ৫০ জনের মধ্য়ে  ৯ জনের পরবর্তীও রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। সেই অনুযায়ী আক্রান্তের সংখ্য়া ৪১। যার মধ্য়ে মারা গিয়েছেন তিন জন। তাহলে সব মিলিয়ে সংখ্য়াটা দাঁড়াল ৩৮ জন।  

এরপরই বুধবারের মুখ্য়মন্ত্রীর যুক্তি শোনা যায় রাজ্য় সরকারের নথিতে। যেখানে বলা হয়েছে, এই ৩৮ জনের মধ্য়ে ৪জনের যে করোনায় মৃত্যু হয়েছে তা এখনও নিশ্চিত নয়। তাই তালিকা থেকে বাদ রাখা হয়েছে তাঁদেরও। ফলে থেকে যাচ্ছেন ৩৪ জন। মুখ্যসচিবের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, রাজ্য়ে এখন এই ৩৪ জনই করোনায় আক্রান্ত। 

মুখ্য সচিবের কথা অনুযায়ী, ওই চার ব্যক্তি কিডনি বা নিউমোনিয়ার মতো অসুস্থতা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। পরে  ওই চার জন মারা যান। যদিও মৃত্যুর পরে তাঁদের চার জনেরই করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। তবে এ কথা বলা মুশকিল যে ওই চার জনের করোনাতেই মৃত্যু হয়েছে।  বুধবার নবান্নে সাংবাদিক  সম্মেলন করে একই যুক্তি দিয়েচিলেন মুখ্য়মন্ত্রী। তিনি জানান,রাজ্য়ে করোনায় ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। বাকিদের অন্য় কারণে মৃত্য হয়ে থাকতে পারে।

কিছু বেসরকারি হাসপাতাল প্রচার পাওয়ার জন্য় রোগীকে করোনা বলে চালাচ্ছে। মহামারী আইন অনুযায়ী সবাইকে এ বিষয়ে সতর্ক থাকা উচিত। সংবাদ মাধ্য়মেরও হাসপাতালের নথিতেই বিশ্বাস রাখা উচিত।