দীর্ঘদিন ধরে লোকচক্ষুর আড়ালে রয়েছেন তিনি। গুরুতর অসুস্থ প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের ছবি কেন সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশ করলেন? রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের আচরণের প্রতিবাদ জানাল বামেরা।

আরও পড়ুন: 'সকলকে বিজয়া দশমীর শুভেচ্ছা ও শুভকামনা', নবমীতে টুইট রাজ্যপালের

২০১১ সালে রাজ্যে পালাবদলের পর সক্রিয় রাজনীতি ধীরে ধীরে নিজেকে সরিয়ে নেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা সিপিএম নেতা বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য। তবে কয়েক বছর আগে পর্যন্ত নিয়মিত যেতেন আলিমুদ্দিন স্ট্রিটে, দলের সদর দপ্তরে। কিন্তু এখন অসুস্থতা এতটাই বেড়েছে যে, বাড়িতে শয্যাশায়ী অবস্থায় দিন কাটে বুদ্ধবাবুর। প্রিয় নেতাকে বহুদিন দেখেননি সিপিএম নেতা-কর্মীরা। বস্তুত, বাম জমানার শেষ মুখ্মন্ত্রী নিজে চান না, তাঁর অসুস্থতার খবর প্রচার হোক। 

শনিবার রাতে অষ্টমীর রাতে পাম অ্যাভিনিউ-তে বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের বাড়িতে যান সস্ত্রীক রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। সৌজন্য বিনিময়ের পর বেশ কিছুক্ষণ প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেন তিনি। এরপর যথারীতি বেশ কয়েকটি ছবি টুইট করে রাজ্যপাল। ছবিতে দেখা যাচ্ছে, বিছানায় শুয়ে অসুস্থ বুদ্ধবাবু। আর সামনে বসে রয়েছেন রাজ্যপাল ও তাঁর স্ত্রী। সেই ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে দ্রুতগতিতে।  কিন্তু ঘটনা হল, রোগশয্য়ায় প্রিয় নেতার ছবি দেখে কষ্ট পেয়েছেন বাম নেতা-কর্মী। চোখও ভিজে গিয়েছেন অনেকেই।  বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যকে দেখতে গিয়ে কেন তাঁর অশক্ত চেহারার ছবি সোশ্যাল মিডিয়া প্রকাশ করলেন রাজ্যপাল? প্রশ্ন তুলেছেন আলিমুদ্দিন স্ট্রিটের নেতারা।

আরও পড়ুন: বিসর্জনে জমায়েত রুখতে তৎপর পুরসভা, গঙ্গার ঘাটে বসানো হচ্ছে জায়ান্ট স্ক্রিন

উল্লেখ্য, এ রাজ্য়ে সাংবিধানিক পদে বসার পর আগেও একবার বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের বাড়িতে গিয়েছিলেন জগদীপ ধনখড়। তখনও যথেষ্ট অসুস্থ ছিলেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী। তাঁর শারীরিক অবস্থা খোঁজখবর নিতে গিয়েছিলেন রাজ্যপাল।