বিজেপির বিতর্কিত পোস্ট ঘিরে সরগরম রাজ্য় রাজনীতি। বেগতিক দেখে বিষয়টি নিয়ে মুখ খুললেন খোদ বিজেপির  রাজ্য় সভাপতি। দিলীপ ঘোষ বলেন,বাঙালদের ছোট দেখিয়ে যারা এরকম পোস্ট  করেছেন,তারা বিজেপির কেউ নন। 

টিকিট দেওয়ার অছিলায় মহিলাকে স্পর্শ, প্রকাশ্য়ে মেট্রো কর্মীর কুকীর্তি

মাঝে মাত্র কয়েকদিনের ব্যাবধান। মোহনবাগান আইলিগ জেতার পরও থেকে গেল রেশ।  সোশ্য়াল মিডিয়ায় মোহনবাগানকে গৈরিক অভিনন্দন জানাতে গিয়ে বাঙালদের স্পর্শকাতর বিষয়ে আঘাত করল বিজেপি। সম্প্রতি  সোশ্য়াল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে ডোমজুর বিজেপির  একটি পোস্ট। যেখানে বলা হয়েছে,'কাঁটাতার পেরিয়ে আসা উদ্বাস্তু বাঙালদের মুখে ঝামা ঘষে ২০১৯-২০ আই লিগ  জয়ের জন্য় মোহনবাগান  ক্লাবকে জানাই গৈরিক অভিনন্দন। আমরা গর্বিত আমরা ভারতীয়। ' সৌজন্য়ে বিজেপি ডোমজুর মণ্ডল। 

বিজেপিতে অন্য়দের সঙ্গে কথা বলেন, দিলীপের সঙ্গে সম্পর্ক নেই শোভনের

তবে শুধু ডোমজুর নয়, বিজেপি বারাসত মণ্ডলে থেকেও করা হয়েছে একই ধরনের পোস্ট। যা নিয়ে সরব হয়েছেন বিজেপি। দলের তরফে বলা হয়েছে, ছবি দেখেই বোঝা যাচ্ছে একই জায়গায় এই কারসাজি করে বিভিন্ন গ্রুপে পোস্ট করা হচ্ছে। এ বিষয়ে বিজেপির রাজ্য় সভাপতি বলেছেন, এই পোস্টের সঙ্গে বিজেপির কোনও সম্পর্ক নেই। এটা পুরোপুরি তৃণমূলের রাজনৈতিক কৌসুলি প্রশান্ত কিশোরের ষড়যন্ত্র। বিজেপির ভাবমূর্তি  নষ্ট করতেই এই ধরনের চেষ্টা চলছে।

পুলিশ ধরার আগেই 'চিরঘুমে' রোদ্দুর, ফেসবুকে ঘুরে বেড়াচ্ছে 'রেস্ট ইন পিস'

রাজ্য়ের সাম্প্রতিক পরিস্থিতি বলছে,উদ্বাস্তুদের সিএএ-র অধীনে নাগরিকত্ব দেওয়ার  কথা বলছে বিজেপি। সেখানে দাঁড়িয়ে সিএএ দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করবে বলছে তৃণমূল। সেখানে গত দু মাস ধরে সিএএ-র বিরুদ্ধে পতে নেমছেন তৃণমূল নেত্রী। কলীঘাটের খবর, বিষয়টি  যে উদ্বাস্তু বাঙালরা ভালো ভাবে নিচ্ছে না তা বিলক্ষণ বুঝেছেন মমতা। সেই জায়গায় দাঁড়িয়ে অ্যাডভান্ডেজ ছিল বিজেপির হাতে। কিন্তু বাঙালদের নিয়ে এই ধরনের পোস্ট প্রকাশ্যে আসতেই তা নিয়ে বিজেপির বিরুদ্দে সরব হয়েছে নেটিজেনরা। পোস্ট গিরে অস্বস্তি বেড়েছে বঙ্গ বিজেপির অন্দরে। তাই বাধ্য় হয়েই মুখ খুললেন বিজেপির  রাজ্য় সভাপতি।