পরোক্ষে রাজ্যপালকে বিজেপির দালাল বলায় এবার মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে পাল্টা আক্রমণে গেলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। রাখ ঢাক না করে মমতা উগ্রপন্থী মুসলিমদের দালাল কিনা সেই প্রশ্ন তুলে দিলেন তিনি। 

এদিন বিজেপি সাংসদ বলেন, মুখ্যমন্ত্রী কি অনুপ্রবেশকারীদের দালাল, না উনি উগ্রপন্থী মুসিলমদের দালাল ? ওদের ভিডিয়ো দেখছি আর মুখ্যমন্ত্রীর ভাষণ শুনছি একই মনে হচ্ছে। রাজ্যের আইনশৃঙ্খলার স্বার্থে রাজ্য়পাল কথা বলেছেন। উনি যা বলেছেন ঠিক বলেছেন। আমরা ওনাকে পূর্ণ সমর্থন করি। মুখ্য়মন্ত্রীর সব সময় দেশবিরোধী কথা বলেছেন। উনি পাকিস্তানের সুরে কথা বলেন। তাই রাজ্য়পালের কথায় ওনার কষ্ট হচ্ছে।  

নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি হয়েছে রাজ্যে। স্টেশন, ট্রেনে ভাঙচুরের পর বাসেও আগুন লাগিয়ে দিয়েছে বিক্ষোভকারীরা। রাজ্য়ের এই হিংসাত্বক পরিস্থিতিতে উদ্বেগ প্রকাশ করে রাজ্য়পালের দ্বারস্থ হয় বিজেপি। বিজেপির রাজ্য় সভাপতি দিলীপ ঘোষ জানান, পশ্চিমবঙ্গে আগুন জ্বলছে, অথচ মুখ্য়মন্ত্রী দিঘায় মোচ্ছব করে বেরাচ্ছেন। রাজ্যে প্রশাসন বলে কিছু নেই। তাই রাজ্যপালকে  শান্তি শৃঙ্খলা বাজায় রাখার জন্য আবেদন জানান বিজেপির নেতারা। দিলীপ ঘোষের সঙ্গে রাজভবনে যায় বিজেপির এক প্রতিনিধি দল। রাজ্য়ের পরিস্থিতি নিয়ে কেন্দ্রের কাছে সঠিক রিপোর্ট পাঠানোর কথা বলেন দিলীপ ঘোষ।

সম্প্রতি রাজ্য়ে ক্য়াব ও এনআরসি হতে দেবেন না বলে বিজ্ঞাপন দিয়েছেন মুখ্য়মন্ত্রী। মমতার এই বিজ্ঞাপনের বিষয়ে মুখ খুলেছেন রাজ্য়পাল জগদীপ ধনখড়। রাজ্য়পাল বলেন,রাষ্ট্রপতি যেই বিলে স্বাক্ষর করেছেন তাকে অস্বীকার করা সংবিধান বিরোধী কাজ। এই কাজ থেকে মুখ্য়মন্ত্রীকে বিরত থাকার কথা বলেন রাজ্য়পাল। যা নিয়ে নাম না করে রাজ্য়পালকে আক্রমণ করেন মমতা। তিনি বলেন, বিজেপির দালাল যারা তাদের আমি ছেড়ে কথা বলি না।