পুরভোটে গণ্ডগোল পাকালে বিপদে পড়বে তৃণমূল। কলকাতা প্রেস ক্লাবে সরাসরি শাসক দলকে হুমকি দিলেন বিজেপি নেতা। বিজেপির রাজ্য় সভাপতি বলেন, আগেরবারের মতো পুরভোটে এবারও গন্ডগোল করবে তৃণমূল। কিন্তু পাঁচ বছর আগের পরিস্থিতি যা ছিল, এখন তার বদল হয়েছে। এখন বিজেপির ১ কোটি সদস্য। ১৮জন সাংসদ। বিজেপি কাউকে ফাঁকা মাঠ ছাড়বে না। এটা ভেবে এগোনো উচিত  তৃণমূলের। 

মঙ্গলবার কলকাতা প্রেস ক্লাবে সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হন বিজেপির রাজ্য সভাপতি। এদিন তিনি বলেন,মুখ্যমন্ত্রী অনেক দিন পর ছবি আকা শুরু করেছে। মানুষ যখন হতাশ হয়। তখন গান গায়। বুদ্ধিজীবীদের গণ আন্দোলনে কোনও প্রভাব নেই। আসলে সিএএ বিরোধিতায় আন্দোলনে ওঁর (মুখ্যমন্ত্রী) সঙ্গে এখন আর মানুষ নেই। তাই শিল্পী, সাহিত্যিকদের সঙ্গে সময় দিতে হচ্ছে। যাদের সমাজ ও গণআন্দোলনে কোনও প্রভাব নেই।

এই বলেই অবশ্য় থেমে থাকেননি মেদিনীপুরের সাংসদ। এদিন শাহিনবাগ আন্দোলন প্রসঙ্গেও বিতর্কিত মন্তব্য করেন দিলীপবাবু। তিনি বলেন, সেখানে দিনরাত পাঁচ ডিগ্রিতে মহিলা, শিশুরা রয়েছে। কেউ মরছে না। কী অমৃত খাচ্ছে ওরা! শাহিনবাগ আন্দোলনের ভিতরে কী হচ্ছে, কোথা থেকে টাকা আসছে তা আমরা বের করবই। সম্প্রতি দিল্লির শাহিনবাগের আন্দোলনে ঢুকতে গেলে সংবাদ মাধ্য়মের একাংশকে বাধা দেওয়া হয়। যদিও বাইরে থেকে বার বার প্রবেশের অনুমতি চাইলে তাদের সঙ্গে কথা বলেতে চাননি বিক্ষোভকারীরা।