ফের শুরু হল বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বনাম অমর্ত্য সেন  কাজিয়া। গত দিনই অমর্ত্য সেন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের গান্ধীভবনে দেশজুড়ে জয় শ্রীরাম বলানো নিয়ে তীব্র আক্রমণ করেন বিজেপিকে। তার ১২ ঘণ্টার মধ্যেই নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেনকে এক হাত নিলেন দিলীপ ঘোষ। এ দিন দীলিপ ঘোষ বলেন, অমর্ত্য সেন কী জানেন? তিনি ভারতবর্ষের বাইরে থাকেন। এখানকার মানুষের সঙ্গে কোনও সম্পর্ক নেই তাঁর। দায়-দায়িত্ব কিছুই নেই তাঁর। এসব জ্ঞান দিয়ে চলে গেলে কিছু যায় আসে না। আর যাদের উপরে ভরসা করেছিলেন তাঁরা কোথায় আছেন নিশ্চিহ্ন হয়ে গিয়েছেন?

প্রসঙ্গত যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি ভাষণের জন্যে আমন্ত্রিত ছিলেন অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন ও বিদগ্ধ গবেষক পার্থ চট্টোপাধ্যায়। অমর্ত্য সেন সভাস্থল থেকে বলেন, 'নির্দেশ না মানলেই এই দেশে মারধোর করা হচ্ছে। ভারতীয় সংবিধানে সমস্ত ধর্মাচরণের অধিকার দেওয়া হয়েছে। আমাদের প্রত্যেকের জানা উচিত ভারতীয় সংবিধানে সমস্ত ধর্মাচরণের অধিকার দেওয়া হয়েছে। আমাদের প্রত্যেকের মানবিকার নিয়ে সরব হওয়া উচিত।' বোঝাই যায় ঝাড়খণ্ডের তবরেজ হোক বা খাস কলকাতার  শাহরুফ হালদার, জয় শ্রীরামের সংক্রমণের শিকারদের বিষয়ে অবগত তিনি। 

আরও পড়ুনঃ জোর করে জয় শ্রীরাম বলানো কেন, নিন্দায় মুখর অমর্ত্য সেন
'অমর্ত্য সেনের জ্ঞানে কিছু যায় আসে না', দিলীপের রোষে নোবলজয়ী অর্থনীতিবিদ, দেখুন ভিডিও
 

এদিন অমর্ত্য সেনের সেই বক্তব্যেরই বিরোধিতা করলেন দিলীপ ঘোষ। বহুদিনই এই নেতার সঙ্গে অর্থনীতিবিদ শ্রীসেনের সম্পর্ক সাপে নেউলের। এবাররে  লোকসভা ভোটের ফল নিয়েও মুখ খুলেছিলেন অমর্ত্য সেন। বলেছিলে জনাদেশ নয় ক্ষমতার কারণে জিতেছে মোদীবাহিনী। এদিন দিলীপ ঘোষ আরও বলেন, 'যারা বিরোধিতা করেছিলেন তারা কোথায় আছে ৪২ থেকে ২২- এ এসেছেন।'

প্রসঙ্গত বিজেপি সুপ্রিমো তথা দেশের প্রধামনন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গেও অমর্ত্য সেনের সংঘাত বেঁধেছে অতীতে। প্রকাশ্যে আয়ুস্মান ভারতের মতো প্রকল্পকে নস্যাৎ করেছেন  শ্রীসেন। অন্য দিকে অমর্ত্য সেনের নাম না করেই প্রধামন্ত্রী  অতীতে মন্তব্য করেছেন, 'এক দিকে ওরা হাভার্ডের কথা বলেন, অন্য দিকে এই গরীব দেশের অর্থনীতির উন্নতির চেষ্টা করে চলেছে।'