চিকিৎসক নিগ্রহের ঘটনায় রোষে ফেটে পড়ছে গোটা রাজ্যের চিকিৎসক সমাজ। কর্মবিরতির ডাক দিয়ে অবস্থান বিক্ষোভ চলছে রাজ্য জুড়ে। এর প্রভাব পড়ছে সরকারি বেসরকারি নানা স্বাস্থ্য ব্যবস্থায়। চিকিৎসদের সাফ কথা দাবি না মানলে এই কর্মবিরতি চলবে। আশঙ্কা এমন চলতে থাকলে ভেঙে পড়বে গোটা রাজ্যের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা, কেননা হাসপাতালগুলির বহির্বিভাগের ওপর নির্ভরশীল গোটা রাজ্যের কয়েক লক্ষ রোগী। 

চিকিৎসকদের এই কর্মবিরতি চিন্তার ভাঁজ ফেলেছে মুখ্যমন্ত্রীর মাথায়। নবান্নে বৈঠক করছেন মুখ্যসচিব ও স্বাস্থ্যসচিব। চলছে সমাধান সূত্রের খোঁজ। সূত্রের খবর, স্বাস্থ্যসচিব রাজীব সিনহার থেকে গোটা ঘটনার খবরও নিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। 

প্রসঙ্গত, চিকিৎসকরা তিন দফা দাবি নিয়ে সামিল হয়েছে প্রতিবাদে। কী সেই তিন দফা দাবি? চিকিৎসকরা চান, নিগ্রহকারীদের নামে জামিন অযোগ্য ধারা দিক পুলিশ। তাঁদের দাবি, সশস্ত্র নিরাপত্তা বাহিনী থাকুক সরকারি হাসপাতালের প্রতিটি বিভাগে। একই সঙ্গে ডাক্তার দাবি থাকছে, ডাক্তারদের রক্ষাকবচ দিতে আইন আনুক সরকার। নীলরতন সরকার মেডিক্যাল কলেজে আন্দোলনরত চিকিৎসক অনিন্দ্য মুখোপাধ্যায় বললেন দাবিদাওয়া না মানা পর্যন্ত আন্দোলন চলবে।

সন্দেশখালি কাণ্ডে যথেষ্ট বিপাকে রয়েছে রাজ্য। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক চাপে রেখেছে মুখ্যমন্ত্রীকে। এবার চিকিৎসক সমাজের রোষে পড়ে যদি গোটা চিকিৎসা ব্যবস্থাই ভেঙে পড়ে, তার ফল কী হবে মমতা ভালই জানেন।