চালু হয়ে গেল ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রো,  উদ্বোধন করলেন রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল। সেখানে সম্মানীয় অতিথি হিসেবে উপস্থিত কেন্দ্রীয় বন ও পরিবেশ রাষ্ট্রমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় এবং বিজেপির অন্য়ান্য় শীর্ষস্থানীয় নের্তৃত্বরা। 

 মেট্রো সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রথম পর্যায়ে ইস্ট-ওয়েস্ট চলবে সেক্টর ফাইভ স্টেশন থেকে সল্টলেক স্টেডিয়াম স্টেশন পর্যন্ত। ৫.‌৮ কিলোমিটার এই পথে ট্রেন অতিক্রম করবে ৬ টি স্টেশন। উদ্বোধনের দিন এই গোটা পথটাই অতিক্রম করা হবে। ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রো-র খুঁটিনাটি বিষয়গুলি একটু জেনে নেওয়া যাক। ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রো-র সেক্টর ফাইভ থেকে সল্টলেক স্টেডিয়াম পর্যন্ত  প্রতি ২০ মিনিট অন্তর মেট্রো পরিষেবা থাকবে।

ভাড়া নেওয়া হবে প্রথম ২কিমির জন্য় ৫ টাকা এবং সর্বাধিক ১০ টাকা।ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রো গতিবেগ ৮০ কিমি প্রতি ঘন্টা।পুরো যাত্রাপথ যেতে সময় লাগবে ১৪ মিনিট। অবশ্য় ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোতেও স্মার্ট কার্ড ব্য়বহার করা যাবে। এছাড়াও জরুরী অবস্থায় কথার জন্য় থাকছে মাইক্রোফোন,প্রত্য়েক কামরায় থাকছে একটি করে হুইল চেয়ার। 

বৃহস্পতিবার ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর যাত্রার শুভ সূচনা করেন পীযূষ গয়াল ও বাবুল সুপ্রিয়। এদিন রেলমন্ত্রী বলেন,  কলকাতা আসতে পারি না। বাবুল নিজে গঙ্গার নীচে মেট্রোর সুড়ঙ্গ পরিদর্শন করেছে। তাই ওকে বলব এই কাজ চালিয়ে যেতে। আমি ইস্ট – ওয়েস্ট মেট্রোর কাজ তদারকির সাব কন্ট্রাক্ট বাবুলকে দিলাম। আপনি সব খেয়াল রাখুন। কোনও জায়গায় সমস্যা হলে মন্ত্রিসভার বৈঠকে আমাকে জানাবেন। রেলমন্ত্রীর  মুখে এই শব্দবন্ধ শুনে হেসে ফেলেন বাবুলও।

উল্লেখ্য, ইস্ট ওয়েস্ট মেট্রোর কাজ নিয়ে মাঝে কিছু সমস্যার  সৃষ্টি হয়. যার জেরে পিছিয়ে যাচ্ছিল এই প্রকল্প। কিন্তু বাবুল সুপ্রিয়র উদ্য়োগে অনেকটাই গতি পায় এই প্রকল্প। যার ফলে সল্টলেকে মেট্রোরেল পেল কলকাতাবাসী। এমনই জানিয়েছন রেলমন্ত্রী। এদিন বাবুল সম্পর্কে পীযূষ গয়াল বলেন, একটা সময় এই মেট্রো প্রকল্প নিয়ে আমার জীবন অতীষ্ঠ করে তুলেছিল  বাবুল।অবশেষে তার চেষ্টার ফল পাওয়া গেল।