রাজ্যে প্রথম করোনা আক্রান্তের হদিশ মিলেছে কলকাতায়৷ ইতিমধ্য়েই ইংল্যান্ড ফেরত ওই তরুণকে বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন,স্পেশাল আইসোলেশন ওয়ার্ডে রাখা হয়েছে তাঁকে৷ তবে একা তরুণ নন, তাঁর পরিবার ওই তরুণের যাঁরা সংস্পর্শে এসেছেন তাঁদেরও নজরদারির মধ্য়ে রাখা হয়েছে। তরুণের পাশাপাশি তার মা-বাবা ও গাড়িচালককে বেলেঘাটা আইডিতে কোয়েরেন্টিনে রাখা হয়েছে৷

আগে বলেছিলেন 'দিল্লির হিংসা ঢাকতেই করোনা', এখন ২০০ কোটির ফান্ড গড়ছেন মমতা

হাসপাতাল  সূত্রে খবর, তরুণের চিকিৎসা নিয়ে আশাবাদী ডাক্তাররা। তাঁদের মতে, এখনও পর্যন্ত স্টেজ-২ পর্যায়ে রয়েছে ওই তরুণের করোনা সংক্রমণ৷ ফলে একেবারে আশঙ্কাগ্রস্ত হওয়ার কিছু নেই। বিশেষ আইসোলেশনে রাখা হয়েছে তাকে। বয়স কম হওয়ায় শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাই ওকে স্বাভাবিক করতে পারবে।  ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে উঠতে পারবে আক্রান্ত।

রাজ্য়ের প্রথম করোনা আক্রান্তের হদিশ কলকাতায়

তবে ডাক্তাররা জানিয়েছেন বয়স বেশি অর্থাৎ সিনিয়র সিটিজেন বা সত্তরোর্ধ কেউ হলে চিন্তার বিষয় থাকত। কারণ শরীরে রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা কমে যাওয়ায় অনেক ক্ষেত্রেই ভাইরাসের থাবা থেকে সুস্থ জীবনে ফিরতে পারেন না তারা। ডাক্তারদের  কথা যে যুক্তিযুক্ত তা বিশ্বে করোনায় মৃতদের পরিসংখ্য়ান থেকেই প্রমাণিত। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই করোনা ভাইরাসের শিকার হয়েছেন  প্রবীণ ব্য়ক্তিরা।

ডাক্তার বলছে বিষ, দিলীপের কাছে গো-মূত্র 'অমৃত'

জানা গিয়েছে,সোমবারই ইংল্যান্ড থেকে কলকাতায় ফেরেন ওই তরুণ৷ পরে বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে প্রাথমিক পরীক্ষা করা হয় তার। প্রথমে বাড়িতেই আলাদা রাখার পরামর্শ দিয়েছিলেন ডাক্তাররা৷ মঙ্গলবার করোনা টেস্ট করাতেই ওই তরুমের দেহে ভাইরাস পাওয়া যায়। সঙ্গে সঙ্গে  ওই তরুণকে বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালের স্পেশাল আইসোলেশন ওয়ার্ডে রাখা হয়েছে৷
 
পরিবার সূত্রে  খবর,  ইংল্যান্ডে এক বন্ধুর জন্মদিনের পার্টিতে গিয়েছিলেন ওই তরুণ৷ সেই পার্টিতেই  ৪ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ছিলেন বলে খবর। তাঁদের থেকেই মারণ করোনায় আক্রান্ত হন রাজ্যের এই তরুণ৷ ইতিমধ্য়েই রোগীর সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদেরও আলাদা পর্যবেক্ষণে রাখা হচ্ছে। রাজ্য়ে করোনা মোকাবিলায়  ২০০ কোটি টাকার তহবিলের কথা ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী।  নবান্নে করোনা নিয়ে বৈঠকের পর রাজ্য়ের মুখ্যমন্ত্রী  মমতা বন্দ্য়োপাধ্য়ায় জানিয়েছেন,  ১০ লক্ষ স্বাস্থ্যকর্মীর জন্য ৫ লক্ষ টাকা করে স্বাস্থ্যবিমা করার সুযোগ দেবে রাজ্য সরকার। 

এছাড়াও এই তহবিলের অর্থে স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য ২ লক্ষ সংক্রমণ নিরোধক পোশাক, ২ লক্ষ এন৯৫ মাস্ক, ৩০০ ভেন্টিলেশন কেনার বন্দোবস্ত করা হয়েছে বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী। করোনার  জেরে ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত স্কুলের ছুটি বাড়ানোর কথা বলেন মুখ্য়মন্ত্রী। করোনা ভাইারাস থেকে বাঁচতে বন্ধ থাকবে আইসিডিএস সেন্টার, সিনেমা হল, শুটিংও। মুখ্য়মন্ত্রী যাবতীয় রিয়েলিটি শো বন্ধ রাখার অনুরোধ জানিয়েছেন।