বাকযুদ্ধে ছেড়ে এবার সোশ্যাল মিডিয়ায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিশানা করলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধানকড়। টুইটারে তিনি লিখেছেন, 'রাজ্যপালের সঙ্গে মাননীয় মুখ্যমন্ত্রীর সম্পর্ক সৌজন্যমূলক।  কিন্তু আলোচনা ছাড়াই যেভাবে জনসমক্ষে মুখ্যমন্ত্রী আক্রমণ করছেন, তা অত্যন্ত বেদনাদায়ক।'  এমনকী, মুখ্যমন্ত্রীর মদতেই রাজ্যের মন্ত্রীরাও প্রকাশ্যেই তাঁর বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিচ্ছেন বলে অভিযোগ করেছেন  রাজ্যপাল জগদীপ ধানকড়।

খুব বেশিদিন হয়নি, পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপালের চেয়ারে বসেছেন।  কিন্তু এরইমধ্যে জগদীপ ধানকড়ের সঙ্গে রাজ্য সরকারের সংঘাত চরমে পৌঁছেছে।  দায়িত্ব নেওয়ার পরই আচমকাই জেলার প্রশাসনিক আধিকারিকদের সঙ্গে বৈঠকে বসার সিদ্ধান্ত নেন রাজ্যপাল জগদীপ ধানকড়।  যদিও শেষপর্যন্ত প্রশাসনিক আধিকারিকদের অনুপস্থিতিতে সেই বৈঠক ভেস্তে যায়। কিন্তু এই ঘটনাকে কেন্দ্র করেই রাজ্যপালের সঙ্গে রাজ্য সরকারের দ্বৈরথের সূত্রপাত।  এরপর কখনও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়কে উদ্ধার করে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে যাওয়া তো কখনও আবার সিঙ্গুর সফর, বিভিন্ন ইস্যুতে বারবার রাজ্য সরকারের সঙ্গে বারবারই সংঘাতে জড়িয়েছেন রাজ্যপাল। দিনেক আগে একটি কর্মসূচিতে যোগ দিতে সড়কপথেই কলকাতা থেকে ফরাক্কা যান জগদীপ ধানকড়। তাঁর অভিযোগ, রাজ্য সরকারের কাছে হেলিকপ্টার চেয়েও পান। বৃহস্পতিবার আবার মুর্শিদাবাদের ডোমকলে রাজ্য়পালকে কালো পতাকা দেখান তৃণমূল সমর্থকরাই।

এদিকে সরকারের সঙ্গে যতবারই সংঘাতে জড়িয়েছেন, ততবারই রাজ্যপালকে নিশানা করেছেন এ রাজ্যের মন্ত্রীরাও।  রাজ্যে সংবিধানিক প্রধানকে 'বিজেপির মুখপাত্র' বলে কটাক্ষ  করেছেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।   বৃহস্পতিবার টুইট করে মুখ্যমন্ত্রী ও তাঁর মন্ত্রিসভার সদস্যদের নিশানা করলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধানকড়। বস্তুত, মুখ্যমন্ত্রীর মদতেই রাজ্যের মন্ত্রীরাও যে তাঁকে সম্মান দিচ্ছেন না, তাও স্পষ্ট করে জানিয়ে দিলেন।