১৪ আগস্টের মধ্যে স্কুল ফি-র ৮০ শতাংশ পরিশোধ করতে হবে। এই মর্মে নোটিশ জারি হয় উত্তর কলকাতার বালিকা শিক্ষা সদন স্কুলে। এই নোটিশ পেতেই  প্রতিবাদে নেমে শুক্রবার সকালে বিক্ষোভ দেখান অভিভাবকরা। তবে বিক্ষোভ দেখে শেষ পর্যন্ত মত বদলায় স্কুল কর্তৃপক্ষ।

আরও পড়ুন, স্বাধীনতা দিবসে রাজ্যের ১০ পুলিশ আধিকারিককে বিশেষ সম্মান, প্রহর গুনছে রেড রোড


উত্তর কলকাতার বালিকা শিক্ষা সদন স্কুলের অভিভাবকদের বক্তব্য, হঠাৎ করে এমন নোটিশ দেওয়ায় বর্তমান পরিস্থিতিতে তাদের পক্ষে এই কম সময়ে ৮০ শতাংশ ফি পরিশোধ করা সম্ভব নয়। তাঁরা দাবি জানান যে,  স্কুল কর্তৃপক্ষকে অবিলম্বে এই নোটিশ প্রত্যাহার করতে হবে। নোটিশ প্রত্যাহারের আশ্বাস না পেলে বিক্ষোভ চলবে বলে হুঁশিয়ারি দেন অভিভাবকরা। এ ঘটনায় ওই স্কুল চত্বরে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায়। পরে বাধ্য হয়ে স্কুল কর্তৃপক্ষ ঘোষণা করে,' অভিভাবকদের পক্ষে যেটুকু ফি দেওয়া সম্ভব তা দিলেই চলবে। বাকিটা পরে পরিশোধ করলে চলবে।' স্কুল কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে এই আশ্বাস পাওয়ার পর বিক্ষোভ তোলেন অভিভাবকরা।

আরও পড়ুন, দেশের সেরা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৈরি মাস্কে উৎসাহ দেখাল না বণিকমহল, যাদবপুরের পেটেন্ট নিল আমেরিকা

প্রসঙ্গত, করোনা আবহে রাজ্য তথা দেশজুড়ে এক কঠিন পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে সবাই যাচ্ছে। আর এই পরিস্থিতিতে অনেকেই কর্মহীন হয়ে পড়েছেন। অনেকে বেতনের অধিকাংশ কমে গিয়েছে। আর এই পরিস্থিতিতে যদি স্কুল কর্তৃপক্ষ অতিরিক্ত মাত্রায় ফি বাড়ায় তা অভিবাবকদের পক্ষে দেওয়া সম্ভব নয়। তাই ইতিমধ্য়েই ফি বৃদ্ধি সহ একাধিক অভিযোগ নিয়ে প্রতিবাদের পথে নেমেছে- দমদম সেন্ট মেরি এন্ড ডে স্কুল,  একে ঘোষ মেমোরিয়াল, নারায়নপুর সেন্ট জোন্স স্কুল, জিডি বিড়লা, তারাতলা নেচার পার্কের বিড়লা ভারতী স্কুল, দিল্লি পাবলিক স্কুল,অ্যাসেম্বলি অফ গড চার্চ স্কুল, হরিয়ানা বিদ্যামন্দির, অশোক হাই সেকেন্ডারি স্কুল,  ক্যালকাটা পাবলিক স্কুল, বউবাজারের সেন্ট মাইকেল স্কুল, বেহালা ওরিয়েন্ট ডে স্কুলের অভিভাবকরা। উল্লেখ্য, এই পরিস্থিতিতে কলকাতা হাইকোর্ট নির্দেশ দিয়েছে,' স্কুলের ৮০ শতাংশ ফি দিতে হবে'। এদিকে এই পরিমাণ ফি দিতে রাজি নয় বালিকা শিক্ষা সদন স্কুলের অভিভাবকরা। প্রতিবাদে নেমে শেষ পর্যন্ত আদায় করে নিল নিজেদের দাবি।