ফি বৃদ্ধির প্রতিবাদে শুক্রবার সকাল থেকে স্কুলের সামনেই অবস্থান বিক্ষোভে রয়েছেন সাউথ পয়েন্ট স্কুলের অভিভাবকরা। সাউথ পয়েন্ট জুনিয়র সেকশনের অভিভাবকদের দাবি, দ্রুত ফি বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত যদি স্কুল কর্তৃপক্ষ প্রত্যাহার না করে, তাহলে তাঁরা আরও বড় আন্দোলনে নামবেন। সোমবার গড়িয়াহাট মোড় অবরোধ করা হবে। জানা গিয়েছে, কয়েক দিন আগে পড়ুয়াদের ফি বৃদ্ধির বিজ্ঞপ্তি জারি করে সাউথ পয়েন্ট স্কুল কর্তৃপক্ষ এবং সেই বৃদ্ধির পরিমাণ প্রায় ২৫ শতাংশ।

আৎও পড়ুন, বিজেপির মিছিলে সিএএ পোস্টার নিয়ে প্রতিবাদ তরুণীর, দিলীপ ঘোষের হুঁশিয়ারী

 সূত্রে খবর,  আগামী শিক্ষাবর্ষ থেকে ২৫ শতাংশ ফি বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নিয়েছে সাউথ পয়েন্ট কর্তৃপক্ষ। জুনিয়র ও সিনিয়র, দুই বিভাগেই এই ফি বৃদ্ধি সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কিন্তু অভিভাবকদের দাবি, এক লাফে এতটা ফি বৃদ্ধি তাঁদের সমস্যা তৈরি করেছে। তাঁদের বক্তব্য, প্রতি বছর ফি বাড়ে। কিন্তু এতটা একসঙ্গে আগে বাড়েনি। অভিভাবকদের তরফে একজন জানিয়েছেন, যে পড়ুয়ার প্রতি মাসে টিউশন ফি লাগে ৩,৬০০ টাকা। আর এ বার সে প্রথম শ্রেণিতে উঠলেটিউশন ফি বেড়ে হচ্ছে ৫,০৭৫ টাকা। যা স্বাভাবিকের তুলনায় অনেক বেশি।যার দরুণ সন্তানদের স্কুলে পড়ানো নিয়ে তৈরি হয়েছে অনিশ্চয়তা। তাই আজ সকাল থেকে সাউথ পয়েন্ট জুনিয়র স্কুলের গেটের বাইরে রাস্তায় তাঁরা বসে পড়ে প্রতিবাদ দেখাতে থাকেন। বেলা পর্যন্ত রাস্তা অবরুদ্ধ থাকায় যান চলাচলেও সমস্যা হয়। যদিও স্কুলের তরফে বিশ্বজিৎ মতিলালের পালটা অভিযোগ, প্রতিবাদ জানাতে গিয়ে অভিভাবকরা স্কুলের গেট কার্যত বন্ধ করে দেন। তাতে সময়মতো স্কুলে ঢুকতে পারেনি ছোট পড়ুয়ারা।

আরও পড়ুন, চলে গিয়েছিলেন মৃত্য়ুর দোরগোড়ায় সেখান থেকে ফিরে আসা, মুকেশের কাহিনি শোনার মত

সাউথ পয়েন্ট কর্তৃপক্ষের  বক্তব্য, সম্প্রতি রাজ্য সরকার তাদের স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষাকর্মীদের বেতন বৃদ্ধি করেছে। তার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে সাউথ পয়েন্টের শিক্ষক-শিক্ষিকাদের বেতন বাড়াতে হবে। অথচ তাঁদের স্কুল সরকারি আর্থিক সাহায্য পায় না। সাউথ পয়েন্টের মতো একই মানের স্কুলে পড়ার যে খরচ, তার চেয়ে এখানকার খরচ এখনও অনেকটাই কম। পুরোটাই পড়ুয়াদের ফি-এর উপরে নির্ভরশীল। তাই চলতি শিক্ষাবর্ষে অন্য টিউশন ফি-র পাশাপাশি সব ফি-ও বাড়ানো হচ্ছে ।