শুক্রবার সারাদিন কমবেশি শহর ও শহরতলি জুড়ে বৃষ্টি হয়েছে। গত ১৭  আগস্ট থেকে শুক্রবার পর্যন্ত প্রায় সর্বত্রই ভাল বৃষ্টি হয়েছে। শহরের একাধিক  এলাকা জলে তলায়। এমনকি বেহালা ঠাকুরপুকুর এলাকায় বাধ্য হয়ে নৌকা নামাতে হয়েছে। ইতিমধ্য়েই নিম্নচাপের বৃষ্টিতে দক্ষিণ ২৪ পরগনার উপকূলবর্তী এলাকায় সমুদ্রে জলোচ্ছ্বাস। জলমগ্ন হয়ে ক্ষতিগ্রস্ত বাড়ি ও দোকান। অপরদিকে, কাকদ্বীপে নদী ভাঙনে তলিয়ে গিয়েছে বাড়ি। তবে আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে,  শুক্রবার থেকে বৃষ্টির পরিমাণ একটু কমবে। কিন্তু এটা বেশি দিন স্থায়ী হবে না। সোমবার থেকেই কলকাতা সহ দক্ষিণ বঙ্গের সব জায়গায় ভারী বৃষ্টি শুরু হবে। এই মুহূর্তে বিকেল ৫ টা ২৫ মিনিটে শহরের তাপমাত্রা ২৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। 

আরও পড়ুন, টানা বৃষ্টিতে নৌকা নামল ঠাকুরপুকুরে, 'মেলেনি প্রশাসনের সাহায্য়'

আলিপুর আবহাওয়া দফতরের পূর্বাঞ্চলীয় অধিকর্তা সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, ২৪ তারিখ নাগাদ আবার একটা নিম্নচাপ তৈরি হবে বঙ্গোপসাগরে। এর ফলে ২৪, ২৫, ২৬ এই তিন দিন বৃষ্টির পরিমান আরও বাড়বে দক্ষিণবঙ্গে। কলকাতা সহ দক্ষিণ বঙ্গের সব জায়গায় ভারী বৃষ্টি হবে। ভারী বৃষ্টিতে ফের ফলে নিচু জায়গা গুলোতে জলমগ্ন হবে ২৪ তারিখ থেকে। উপকূলের জেলা বিশেষ করে পূর্ব মেদিনীপুর ও দুই ২৪ পরগনা বৃষ্টির পরিমাণ অনেক বেশি হবে । ভালোই থাকবে। উপকূলীয় জেলাগুলিতে ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টি হওয়ার সম্ভবনা। এবং উপকূলের জেলাগুলিতে হাওয়া  তাই মৎস্যজীবীদের ২৩ তারিখের পর থেকে সমুদ্র যেতে নিষেধ করা হয়েছে। 

আরও পড়ুন, ৬ মাসে ক্ষতি ১০ কোটি টাকা, চরম আর্থিক সঙ্কটে সায়েন্স সিটি, কেন্দ্রের কাছে সাহায্যের আবেদন


  হাওয়া অফিস সূত্রে খবর, শুক্রবার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা  ২৯.০ ডিগ্রি সেলসিয়াস। স্বাভাবিকের ৩ ডিগ্রি নীচে। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা  ২৫.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। স্বাভাবিকের ১ ডিগ্রি নীচে। আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ- সর্বাধিক  ৯৭ শতাংশ এবং ন্যূনতম ৯৩ শতাংশ। বৃহস্পতিবার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা  ৩১.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। স্বাভাবিকের ৩ ডিগ্রি নীচে। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা  ২৫.৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। স্বাভাবিকের ১ ডিগ্রি নীচে। আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ- সর্বাধিক  ৯৭ শতাংশ এবং ন্যূনতম ৮১ শতাংশ।সোমবার কলকাতায়  সর্বনিম্ন তাপমাত্রা  ২৭.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা স্বাভাবিকের থেকে এক ডিগ্রি বেশি। এবং সর্বোচ্চ তাপমাত্রা  ৩২.১ডিগ্রি সেলসিয়াস।  বাতাসে আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ সর্বাধিক  ৯৫ শতাংশ। আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ ন্যূনতম ৭৩ শতাংশ। 


অতি সক্রিয় মৌসুমী অক্ষরেখা। সুস্পষ্ট নিম্নচাপ পশ্চিমে সরে  মধ্যপ্রদেশ ও ছত্রিশগড় এলাকায় অবস্থান করছে। রবিবার নতুন করে একটি নিম্নচাপ তৈরি হবে উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগরে। জোড়া নিম্নচাপের প্রভাবে মঙ্গলবার পর্যন্ত বৃষ্টি চলবে। দক্ষিণবঙ্গের সব জেলাতে বিক্ষিপ্ত বৃষ্টি।  ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টির ও পূর্বাভাস। শনিবার সকাল পর্যন্ত ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস পূর্ব-পশ্চিম মেদিনীপুর, ঝাড়গ্রাম, দক্ষিণ ২৪ পরগনায়। দু-এক পশলা ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস কলকাতা উত্তর ২৪ পরগনা নদীয়া হাওড়া হুগলি পূর্ব ও পশ্চিম বর্ধমান পুরুলিয়া বাঁকুড়া বীরভূম জেলায়।  মেঘলা আকাশ বিক্ষিপ্ত বৃষ্টির দক্ষিণবঙ্গ জুড়ে। দু-এক পশলা ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস বীরভূম, পশ্চিম বর্ধমান, বাঁকুড়া ,পুরুলিয়াতে। রবিবার থেকে ফের বৃষ্টির পরিমাণ বাড়বে। রবিবার পূর্ব-পশ্চিম মেদিনীপুর এবং ঝাড়গ্রামে ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস।

আরও পড়ুন, লড়াই শেষ হাসপাতালে, করোনা আক্রান্ত কলকাতা পুলিশের এক শীর্ষ আধিকারিকের মৃত্যু

সোমবার নিম্নচাপের প্রভাবে দক্ষিণবঙ্গ জুড়ে প্রবল বৃষ্টির সম্ভাবনা। উপকূলীয় জেলাগুলোতে ঝোড়ো হাওয়া বইবে। ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টি উপকূলের জেলা ও পশ্চিমের জেলাগুলিতে। ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা পূর্ব পশ্চিম মেদিনীপুর ঝাড়গ্রাম, হাওড়া, হুগলিতে। মঙ্গলবার অতি ভারী বৃষ্টি হবে পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুর ঝাড়গ্রাম পুরুলিয়া বাঁকুড়াতে। দিনভর বৃষ্টি দু-এক পশলা ভারী বৃষ্টি হবে কলকাতা উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা, হাওড়া, হুগলি, নদীয়া, মুর্শিদাবাদ, পূর্ব ও পশ্চিম বর্ধমান এবং বীরভূমে। উত্তরবঙ্গে বজ্রবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টি হলেও ভারী বৃষ্টির কোনও সম্ভাবনা নেই।