বধূ নির্যাতনের মামলায় ফের অস্বস্তিতে টিম ইন্ডিয়ার পেসার মহম্মদ শামি।  শামি ও তাঁর দাদাকে হাসিন জাহান নির্যাতনের মামলায় নোটিশ দিতে বলেছে হাইাকোর্ট।নোটিশ দিতে বলা হয়েছে রাজ্য সরকারকেও। মামলার পরবর্তী শুনানি রয়েছে দু'সপ্তাহ পর।

'তাপসের গ্রেফতারিতে কেন ধরনা দেননি', মমতার বিরুদ্ধে মৃতদেহ রাজনীতির অভিযোগ বিরোধীদের

অতীতে সম্পর্কের অবনতি হওয়ায় স্বামী মহম্মদ শামি ও তাঁর দাদার বিরুদ্ধে যাদবপুর থানায় বধূ নির্যাতন, শ্লীলতাহানি সহ একাধিক অভিযোগ  জানান হাসিন। এ বিষয়ে আলিপুর কোর্ট শামিকে হাজির হতে বললেও তিনি আসেননি। এমনকী এই মামলায় কোর্ট থেকে কোনও আগাম জামিনও নেননি শামি  ও তাঁর দাদা। অথচ যাদবপুর থানা আলিপুর কোর্টে পেশ করা চার্জশিটে মহম্মদ শামি পলাতক বলে উল্লেখ করেছে। 

'আমার মায়ের মৃত্যুর জন্য রাজ্য সরকার দায়ী', বিস্ফোরক অভিযোগ কুণাল ঘোষের

পরে অবশ্য  আলিপুর কোর্ট মহম্মদ শামির বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে। যদিও গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ করে পরবর্তীকালে আলিপুর জজ কোর্টে মামলা করেন শামি। জজ কোর্টের বিচারক গ্রেফতারি পরোয়ানা সহ সমস্ত আইনি প্রক্রিয়ার ওপর স্থগিতাদেশ দেন৷ ফলে হাসিনের মামলার সমস্ত প্রক্রিয়া থমকে যায় কোর্টে৷ 

নিম্ন আদালতের নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ করে এবার কলকাতা হাইকোর্টে আসেন হাসিন। বৃহস্পতিবার বিচারপতি জয় সেনগুপ্তর এজলাসে হাসিনের আইনজীবী আশিস কুমার চৌধুরী বলেন, "নিম্ন আদালত শামির গ্রেফতারি পরোয়ানার ওপর রায় দিতে গিয়ে পুরো আইনি প্রক্রিয়ার ওপরই স্থগিতাদেশ দিয়ে দিয়েছেন৷ নিম্ন আদালত এভাবে সম্পূর্ণ  আইনি প্রক্রিয়া তো বন্ধ করে দিতে পারে না৷"

কী গল্প কলকাতাকে শোনাল রোবট কন্যা সোফিয়া, দেখুন সেরা ১২ ছবি

বিষয়টি খতিয়ে দেখে হাইকোর্টও বিস্মিত হয়। নিম্ন আদালতে মহম্মদ শামির মামলার শুনানির সময় রাজ্য সরকার কেন নিষ্ক্রিয় ছিল এনিয়েও প্রশ্ন তোলে হাইকোর্ট। বিচারপতি জয় সেনগুপ্ত রাজ্য সরকারকে এই মামলার সমস্ত নথি পরবর্তী শুনানির দিন কোর্টে পেশ করার নির্দেশ দিয়েছেন।