আস্থাভোটে জিতেও শেষরক্ষা হয়নি। ভাটপাড়া পুরসভা দখল করতে এবার আইনি পথে লড়াইয়ে নামল তৃণমূল। হাইকোর্টের সিঙ্গল বেঞ্চের রায়কে চ্যালেঞ্জ করে ডিভিশন বেঞ্চে মামলা করলেন দলের তিন জন কাউন্সিলর। কিন্তু সিঙ্গল বেঞ্চের রায়ের কপি না থাকায় দ্রুত শুনানির আর্জি খারিজ করে দিয়েছে আদালত। ডিভিশন বেঞ্চের বিচারপতি দীপঙ্কর দত্তের মন্তব্য, 'সোমবার শুনানি হলে স্বর্গ ভেঙে পড়বে না!'

আরও পড়ুন: হাইকোর্টের নির্দেশে ভাটপাড়া পুরসভা ফের হাতছাড়া হল তৃণমূলের

লোকসভা ভোটের পরই উত্তর চব্বিশ পরগণার ভাটপাড়া পুরসভার হাতছাড়া হয় তৃণমূলের। দলের ২৯  কাউন্সিলর যোগ দেন বিজেপিতে, আস্থা ভোটে জিতে বোর্ড করে গেরুয়াশিবির। পুরসভার চেয়ারম্যান হন খোদ বারাকপুরের সাংসদ অর্জুন সিংয়ের ভাইপো। কিন্তু ভাটপাড়ায় বিজেপিতে ভাঙন ধরতেও বেশি সময় লাগেনি। পালাদলের কয়েক মাস পর, নভেম্বরে তৃণমূলের ফেরেন দলত্যাগী ১২ জন কাউন্সিলর। ভাটপাড়া পুরসভায় ফের সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়ে যায় রাজ্যের শাসকদলই।  বিজেপি পরিচালিত পুরবোর্ডের বিরুদ্ধে অনাস্থা এনে ভোটাভুটি নোটিস দেন তিনজন তৃণমূল কাউন্সিলর। শুধু তাই নয়, বৃহস্পতিবার আস্থা ভোটে জিতে পুরসভার পুর্নদখলের কথা ঘোষণা করে দেওয়া হয়।  

আরও পড়ুন: অর্জুনের গড়ে জোর ধাক্কা বিজেপি-এর, সাত মাস পর ভাটপাড়া পুরসভার দখল নিল তৃণমূল

এদিকে ভোটাভুটি অংশ নেওয়া তো দূর অস্থ, ভাটপাড়া পুরসভায় বেআইনিভাবে আস্থা ভোট করানোর অভিযোগে কলকাতা হাইকোর্টে মামলা করে বিজেপি। গেরুয়াশিবিরের বক্তব্য, পুরসভার চেয়ারম্যান নিজেই ২০ জানুয়ারি সভা ডেকেছেন। কিন্তু তার আগেই বেআইনিভাবে সভা ডেকে অনাস্থা প্রস্তাব পাস করিয়ে নিয়েছেন তৃণমূল কাউন্সিলরা। বৃহস্পতিবার ভাটপাড়া পুরসভার  অনাস্থা প্রস্তাব ও ভোটাভুটি খারিজ করে দেয় কলকাতা হাইকোর্টের সিঙ্গল বেঞ্চ। সেই রায়কে চ্যালেঞ্জ করে এবার ডিভিশন বেঞ্চে মামলা করল তৃণমূল।