পুজো মানেই শুরু কাউনডাউন। না ষষ্ঠী সপ্তমীর লিস্টি ধরে নয়, এই শিরোনাম সকলের চেনা। রাত ১০টা অমক মণ্ডপে এত লক্ষ মানুষের ভিড়। অমুক রাস্তায় জানজট, গাড়ি দেওয়া হচ্ছে ঘুড়িয়ে। এমনই হাজার হাজার চেনা ছকে বাঁধা খবরই এই চার দিন জুড়ে থাকে খবরের পাতায় পাতায়। কিন্তু এবার ঘটেছে ছন্দপতন। যে পুলিশ আগে গাড়ি থামিয়ে দর্শনার্থীদের সুবিধে করে দিত ভিড় এড়াতে, সেই পুলিশের ওপরই এবার ভার পড়েছে কড়া পাহারায় সকলকে মণ্ডপ থেকে দূরে সরিয়ে রাখার। 

আর এই দ্বায়িত্বই পালন করতে কলকাতার বুকে ষষ্ঠী থেকে নেমে পড়ছে হাজার হাজার পুলিশ। কলকাতার বুকে মোট পুজোর সংখ্যা আড়াই হাজার। তাই সব মণ্ডপেই কড়া নজর দেওয়া সম্ভবপর হচ্ছে না। সেক্ষেত্রে পুজো কমিটি ও ভলেন্টিয়ারকে দিয়েই এই দ্বায়িত্ব দেওয়া পালন করা হচ্ছে। কিন্তু কোথাও গিয়ে যেন এখনও চেনা ছকে ধরা পড়েনি সেই নিয়ম ভেঙে কোনও অপ্রীতিকর ঘটনা। 

তবে যেহেতু সব মণ্ডপকেই কোয়ারেন্টাইন জোন হিসেবে ধরা হয়েছে তাই বসে গিয়েছে নো এন্ট্রি বোড। রাস্তায় রাস্তায় পুলিশের টহল চলছে এদিন সকাল থেকেই। মানুষকে সচেতন করা, ভিড় এড়ানো বস দিক থেকেই নানা ভাবে তৎপর পুলিশ। তবে নির্দিষ্ট ব্যারিকেটের বাইরে কিন্তু খানিক হলেও ভিড়, চলছে সেলফি ও ছবি তোলাও। কিন্তু খুব বেশিক্ষণের জন্য নয়। সামনে থেকে সরিয়ে দেওয়া হচ্ছে সাধারণ মানুষকে। এক এক অন্য পুজো। যেখানে প্রাণের ঝুঁকি নিতে নারাজ সকলেই। আর সেই হাইকোর্টের নির্দেশ অক্ষরে অক্ষরে পালন করতেই প্রস্তুত পুলিশ।