ক্রেন থেকে হাত পা বেঁধে তাঁকে মাঝ গঙ্গায় জলের নীচে নামিয়ে দেওয়া হতো। আর জাদুবলে হাত পায়ে বাঁধন খুলে জলের মধ্যে থেকে উঠে আসতেন তিনি। ঝুঁকিপূর্ণ এই খেলা দেখিয়েই বিখ্যাত হয়েছিলেন তিনি। শেষ পর্যন্ত গঙ্গায় এমন ঝুঁকিপূর্ণ ম্যাজিক দেখাতে গিয়েই নিখোঁজ হয়ে গেলেন ম্যাজিশিয়ান চঞ্চল লাহিড়ি। 

ম্যাজিক দেখাতে গিয়ে নিজেকে ম্যান্ড্রেক বলেই পরিচয় দিতেন চঞ্চল লাহিড়ি। গঙ্গায় নিয়মিত এই ঝুঁকিপূর্ণ খেলা দেখাতেন তিনি। এ দিন দুপুরে ফের মিলেনিয়াম পার্ক থেকে লঞ্চে করে মাঝগঙ্গায় যান চঞ্চলবাবু। অন্য একটি লঞ্চ থেকে গোটা  ঘটনার ভিডিওগ্রাফিও করা হচ্ছিল। সেখানে চঞ্চলবাবুর সহকারীরা সহ দশজন উপস্থিত ছিলেন। 

খেলা দেখানোর সময় নিজের স্ত্রীকে হাওড়া ব্রিজের উপরে দাঁড়াতে বলেন চঞ্চল লাহিড়ি। তিনি বলেছিলেন, জল থেকে উঠে এসে স্ত্রীর উদ্দেশে হাত নাড়বেন। কিন্তু এ দিন জলে নামানোর পরে বেশ কিছুক্ষণ কেটে গেলেও ম্যান্ড্রেক আর উঠে আসেননি। কার্যত অসহায় অবস্থায় পড়েন তাঁর সহকারীরাও। অতীতে খাঁচার মধ্যে বন্দি হয়েও জলের নীচে নেমেছেন চঞ্চলবাবু। 

খবর পেয়ে চঞ্চলবাবুর  খোঁজে তল্লাশি শুরু করে রিভার ট্রাফিক পুলিশ। নামানো হয় ডুবুরিও। কিন্তু শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত তাঁর কোনও খোঁজ মেলেনি। জানা গিয়েছে, গত বেশ কয়েক বছর ধরে গঙ্গার বুকে এই খেলা দেখাতেন চঞ্চল লাহিড়ি। ২০১৩ সালে তাঁর কারসাজি ধরে ফেলার দাবি করে বেশ কয়েকজন চঞ্চলবাবুকে নিগৃহীতও করে। তখন চঞ্চলবাবু দাবি করেছিলেন, গোটা বিশ্বে প্রায় আড়ই হাজার বার এই খেলা দেখিয়েছেন তিনি। তবে গঙ্গায় এই খেলা দেখানোর জন্য এ দিন তিনি পুলিশের অনুমতি নিয়েছিলেন বলেই খবর।