করোনার আবহে এবার নার্সদের কুর্নিশ জানালেন মুখ্যমন্ত্রী। আন্তর্জাতিক নার্স দিবসে ট্যুইট করে মুখ্য়মন্ত্রী বলেন, আজ অর্থাৎ ১২ মে ইন্টারন্যাশনাল নার্সেস ডে। আজ ফ্লোরেন্স নাইটিঙ্গেলের জন্মদিবস। আপনারা জীবন বাজি রেখে কাজ করছেন হাসপাতালে ৷ সকল নার্সদের স্যালুট জানাই।

রাজ্য়ের সাম্প্রতিক অতীত বলছে, করোনা পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে নার্সদের বাক্যবানের মুখেও পড়তে হয় রাজ্য় সরকারকে। খোদ রাজ্য় সরকারের ঘোষিত কোভিড হাসপাতালে পিপিই, মাস্কের জন্য় বিক্ষোভ দেখান নার্স,স্বাস্থ্য়কর্মীরা। এবার বিশ্ব নার্স দিবসে সেই  সেবিকাদেরই সম্মান জানাতে ভুললেন না মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়। এদিন তিনি বলেন,করোনা মোকাবিলায় অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়েছেন নার্সরা ৷ তাদের সেবা-যত্নেই সুস্থ হয়ে ওঠেন রোগী ৷ 

টুইটারে মমতা লিখেছেন, করোনা ঠেকাতে রোগীদের সেবায় নার্সদের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ ৷ নিজেদের পরিবার পরিজন ছেড়ে রোগীর সেবা করছেন নার্সরা ৷ জীবন বাজি রেখে কাজ করছেন হাসপাতালে ৷ সকল নার্সদের কুর্নিশ৷ ২০২০ সাল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা নার্সদেরই বছর হিসেবে ঘোষণা করেছে ৷ এবছরই ফ্লোরেন্স নাইটেঙ্গেলের দ্বিশতবর্ষ ৷ বিশ্ব জুড়ে করোনা পরিস্থিতিতে প্রথম সারির সৈনিক নার্সরাই ৷ 

করোনা রোগীকে সুস্থ করতে গিয়ে ইতিমধ্যেই দেশে আক্রান্ত প্রায় ৫০০ নার্স ৷ কোথাও হাসপাতাল থেকে ভাড়া বাড়িতে ঢুকতে গেলে আপত্তি তুলেছেন বাড়িওয়ালা।  যা নিয়ে ইতিমধ্য়েই কড়া পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার। কোথাও করোনা যোদ্ধাদের ওপর খারাপ ব্যবহার হলে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক।
কে