কলকাতার এমআর বাঙ্গুর হাসপাতালকে এবার করোনা হাসপাতাল বলে চিহ্নিত করা হয়েছে। সেখানকার অন্য রোগীদের এসএসকেএম এবং শম্ভুনাথ পণ্ডিত হাসপাতালে সরানো হবে বলে শুক্রবার নবান্নে জানান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। 

আরও পড়ুন, সরকারি স্কুলের পড়ুয়াদের ক্লাস দূরদর্শনে, প্রশ্ন পাঠাতে হবে হোয়াটসঅ্যাপে

সরকার প্রথমে কলকাতা মেডিক্যালে ২২০০ শয্যার করোনা হাসপাতাল তৈরির কথা ভেবেছিল। কিন্তু সেখানে কিছু প্রযুক্তিগত সমস্যা দেখা দেয়। তার পরেই বাঙুরকে করোনা চিকিৎসার জন্য বেছে নেওয়া হয়েছে বলে সরকারি সূত্রের খবর। জেলায় জেলায় করোনা হাসপাতাল তৈরিতে বা ওই রোগে মৃতদের দেহ সৎকারে যেভাবে বাধা দেওয়া আসছে, এ নিয়ে যথেষ্ট ক্ষোভ প্রকাশ করেন রাজ্য়ের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন,'কেউ চায় না, রাজ্যে একটিও কোভিড হাসপাতাল তৈরি হোক। কেউ চায় না, এক জনও কোভিডে আক্রান্ত হোন। কিন্তু এ তো মহামারি। মানুষ আক্রান্ত হলে চিকিৎসার ব্যবস্থা করতেই হবে। তাই কোভিড হাসপাতাল তৈরিতে বাধাদান মেনে নেওয়া হবে না। সব রকম সতর্কতা নিয়েই সিদ্ধান্ত নিচ্ছে এবং কাজ করছে প্রশাসন।' 

আরও পড়ুন, অনলাইনে দূরপাল্লার ট্রেনের টিকিট বুকিং চালুই রয়েছে , বিভ্রান্তি দূর করতে টুইট রেলের

অপরদিকে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজের সুপার ইন্দ্রনীল বিশ্বাস জানান, তাঁরা আবার সাধারণ চিকিৎসা চালু করেছেন। হৃদ্‌যন্ত্রের অস্ত্রোপচার, দুর্ঘটনায় আহতদের চিকিৎসা, সিজার সবই চলছে। উল্লেখ্য়,  গতকাল এমআর বাঙ্গুরে করোনা আক্রান্তদের স্থানান্তকরণ নিয়ে অবস্থানে বিক্ষোভে সামিল হন ওই হাসপাতালের সকল নার্স।  
 

 

 রাজ্য়ে করোনায় আক্রান্ত এবার এক নার্স, পরিবারকে কোয়ারেনটাইনে থাকার নির্দেশ স্বাস্থ্য দফতরের

করোনা আক্রান্তদের এমআর বাঙ্গুরে স্থানান্তর ঘিরে তুলকালাম, অভিযোগ নিয়ে অবস্থান বিক্ষোভে নার্সরা

পাঁচিল টপকালেই ভাইরাস এক্সপার্ট সেন্টার, তবুও মুখ ফিরিয়ে মেডিক্য়াল কলেজ