আর্থিক প্রতারণা মামলায় কলকাতা পুলিশের নোটিশ পেয়েও হাজিরা দিলেন না বিজেপি নেতা মুকুল রায়। ব্যস্ততার কারণে আগামী ১৮ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় চান মুকুল। যদিও সেই আর্জি খারিজ করে দিয়ে আগামী ১২ ডিসেম্বর ফের মুকুলবাবুকে তলব করল কলকাতা পুলিশ। 

জোনাল রেলওয়ে ইউজার্স কমিটিতে সদস্য পদ পাইয়ে দেওয়ার নাম করে সত্তর লক্ষ টাকা প্রতারণা মামলার তদন্তে বিশেষ তদন্তকারী দল বা সিট গঠন করে কলকাতা পুলিশ। অভিযোগপত্রে মুকুল রায়ের নাম থাকায় তাঁকে ডেকে পাঠানো হয়। কলকাতা পুলিশের এক অ্যাসিস্ট্যান্ট কমিশনার পদমর্যাদার অফিসার পার্থপ্রতিম দাস এই তদন্তকারী দলের প্রধান। তিনিই এ দিন পর্ণশ্রী থানায় মুকুল রায়কে জেরা করার জন্য হাজির ছিলেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত মুকুলবাবু হাজিরা দেননি। তাঁর বদলে বিজেপি নেতার আইনজীবীরা চিঠি নিয়ে থানায় এসে পার্থপ্রতিমবাবুর সঙ্গে দেখা করেন। 

মুকুলবাবুর তরফে তাঁর আইনজীবীরা পুলিশকে জানান, এই মুহূর্তে ঝাড়খণ্ডের নির্বাচনে প্রচারের কাজে ব্যস্ত রয়েছেন মুকুল রায়। সেখানে তিনি দলের প্রচারের মূল দায়িত্ব সামলাচ্ছেন। সেই কারণে আগামী ১৮ ডিসেম্বরের আগে তাঁর পক্ষে হাজিরা দেওয়া সম্ভব হবে না। পুলিশের পক্ষ থেকে অবশ্য স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হয়, বিজেপি নেতাকে অতদিন সময় দেওয়া সম্ভব নয়। আগামী ১২ ডিসেম্বর হাজিরা দিতে হবে মুকুল রায়কে। 

পরে মুকুলবাবুর আইনজীবী প্রশান্ত মজুমদার অভিযোগ করেন, হাইকোর্টের নির্দেশিকা অনুযায়ী হাজিরা দেওয়ার অন্তত বাহাত্তর ঘণ্টা আগে মুকুল রায়কে তা জানানোর কথা কলকাতা পুলিশের। কিন্তু সেই নির্দেশ মানেনি পুলিশ। ১২ ডিসেম্বরও মুকুলবাবু হাজিরা দেবেন কি না, তা তাঁর সঙ্গে কথা না বলে জানানো সম্ভব নয় বলেই জানিয়েছেন বিজেপি নেতার আইনজীবী।