কাটমানি। এই শব্দ বন্ধ আপাতত পশ্চিমবঙ্গের ট্রেন্ডিং। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কাটমানি নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেওয়ার পর থেকেই  বারবার নাটকীয় পরিস্থিতি তৈরি হচ্ছে। মুখ্যমন্ত্রী জানিয়ে দিয়েছেন এর তদন্ত করবে আর্থিক অপরাধ দমন শাখা। তার পরেও কখনো চলছে বিধায়ক এর কার্যালয় ঘেরাও কখনো চলছে জেলা অফিস ভাঙচুর। ইস্যু একটাই, কাটমানি। 

এবার এই কাটমানি নিয়েই মুখ খুলেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্নেহধন্য শিল্পী নচিকেতা।  এই বিষয় নিয়ে  গান লিখেছেন নচিকেতা। সেই গান ইতিমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল। তৈরি হচ্ছে জল্পনা।  নানা মহলে ইতিমধ্যেই প্রশ্ন ছড়াতে শুরু করেছে, একুশের মঞ্চে যার অংশগ্রহণ এত সক্রিয় ছিল  সেই নচিকেতা কি এবার খোদ তৃণমূলের বিরুদ্ধেই গেল?

সন্দেহের আগুন আরো জ্বালিয়ে দিচ্ছে বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়ের মন্তব্য। লকেট চট্টোপাধ্যায় এদিন বলেন 'নচিকিতার মনে হয়েছে অন্যায়ের বিরুদ্ধে গান করেছেন , সত্যি নিয়ে লিখেছেন, খুব ভাল লাগছে। ওনাকে আমার তরফ থেকে ধন্যবাদ। শাসক দলে থেকে শাসক দলের তোলাবাজি কাটমানি নিয়ে গান লিখেছেন ,এর জন্য সাহস দরকার। আর নচিদার গানে একটা বিপ্লব আছে ,তাই এই গান মানুষের মনে সাড়া ফেলবে। ভোটের আগে বাবুলের র গান নিয়ে নির্বাচন কমিশনের কাছে অভিযোগ করেছিল তৃণমূল। আশা করব নচিদার গান নিয়ে  আবার কোনও বাধা না আসে শাসক দল থেকে। যারা এই প্রতিবাদ করে তাদের ভালো লাগে ।নচিদা বিজেপিতে আসতে চাইলে স্বাগত।'

সমাজের অন্যায় বঞ্চনা নিয়ে নচিকেতার গান লেখা নতুন নয়। এ কাজ তিনি করে আসছেন ১৯৯০ এর দশক থেকে। কিন্তু পরিবর্তনের সময় থেকেই তাঁর শাসকঘনিষ্ঠতার কথা সকলে জানেন। সেই একই ব্যক্তি শাসকের বিরুদ্ধে কথা বলছেন, এ কী অন্য কোনও ইঙ্গিত, নাকি নচিকেতা আগেরই মত রয়েছেন, দামাল, ঠোঁটকাটা?