যাত্রী চাহিদার কথা মাথায় রেখে বিভিন্ন রুটে নতুন ৫০টি বাস নামাচ্ছে রাজ্য পরিবহণ দফতর। জুলাইয়ের প্রথম সপ্তাহ থেকেই বিভিন্ন রুটে সরকারি এই বাসগুলির পরিষেবা চালু হয়ে যাচ্ছে। ব্যস্ত সময়ে কোন এলাকায় যাত্রী চাহিদা কেমন থাকছে, তার উপরে নির্ভর করেই রুটগুলি ঠিক করা হয়েছে। 

আরও পড়ুন- চলন্ত বাসে লুকিয়ে মোবাইলে যুবতীর ছবি, সহযাত্রীর বুদ্ধিতে কুকীর্তি ফাঁস

নতুন যে বাস পরিষেবা চালু হতে চলেছে, তার মধ্যে বারাসত এবং গড়িয়ার মধ্যে সারারাত ধরে বাস চলাচল শুরু করছে পরিবহণ দফতর। এর আগে হাওড়া, শিয়ালদহ স্টেশন থেকেও শহরের বিভিন্ন অংশে নাইট সার্ভিস চালু করা হয়েছিল। পরিবহণ দফতরের দাবি, যেহেতু গড়িয়া এবং ই এম বাইপাস সংলগ্ন এলাকায় নতুন নতুন বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান এবং অফিস চালু হচ্ছে, তাই ওই এলাকায় রাতভরই বাস পরিষেবার চাহিদা রয়েছে যাত্রীদের মধ্যে। সেকথা মাথায় রেখেই গড়িয়া থেকে ই এম বাইপাস, ভিআইপি রোড, যশোর রোড ধরে বারসত পর্যন্ত সারা রাত সরকারি বাস চালানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আবার বারাসত এবং গড়িয়ার মধ্যে ওই একই রুটে দিনের অন্য সময়ও যাত্রীদের চাহিদা থাকায় এস ৩৭ রুটে বেশ কিছু সরকারি বাস নামানো হচ্ছে। 

মাঝেরহাট সেতু ভেঙে পড়ার পর থেকেই বেহালা থেকে যাতায়াতে অসুবিধায় পড়ছেন সাধারণ মানুষ। সেই কথা মাথায় রেখেই বেহালা অঞ্চলের জন্য দু'টি রুটে বাস পরিষেবা শুরু হচ্ছে। অক্সিটাউন থেকে বকুলতলা, বেহালা চৌরাস্তা, করুণাময়ী, টালিগঞ্জ, রাসবিহারী, পার্ক স্ট্রিট, ধর্মতলা, বিবাদী বাগ হয়ে হাওড়া পর্যন্ত চালু হচ্ছে এম ৭বি রুট। এর পাশাপাশি বড়িশা থেকে টালগঞ্জ মেট্রো স্টেশন পর্যন্ত ইলেক্ট্রিক বাস পরিষেবা চালু করা হচ্ছে যাত্রীদের সুবিধায়। 

এ ছাড়াও হাওড়া থেকে এমজি রোড, শিয়ালদহ, মল্লিকবাজার, মিন্টো পার্ক, এক্সাইড মোড়, পার্ক স্ট্রিট হয়ে ফের হাওড়া পর্যন্ত একটি সার্কুলার রুটও চালু করছে পরিবহণ দফতর। এই বাসগুলি হাওড়া স্টেশন থেকে ঘুরে এই রুট ধরে ফের হাওড়া স্টেশনেই ফিরে আসবে। এর ফলে হাওড়া এবং শিয়ালদহের মধ্যে যেমন আরও বাসের সংখ্যা বাড়বে, তেমনই এই বাস ধরলে হাওড়া বা শিয়ালদহ থেকে সহজে মেট্রো স্টেশনেও পৌঁছতে পারবেন যাত্রীরা। ব্যস্ত সময়ে দশ মিনিট অন্তর এই বাস পরিষেবা মিলবে।