রাজ্য়ে করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় এবার নতুন বিধি লাগু করল রাজ্য় সরকার। নতুন নিয়ম অনুসারে এবার থেকে সরকারি অফিসে ৭০ শতাংশের বদলে ৫০ শাতাংশ হাজিরা দিতে হবে। আগামী ৩০ জুলাই পর্যন্ত চলবে এই নিয়ম। বৃহস্পতিবার নবান্নে এই ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়। 

পাশাপাশি ব্যাংকগুলিকে সপ্তাহে দুদিন ছুটি দেওয়ার বিষয়ে চিন্তা ভাবনা করছে  রাজ্য় সরকার। এতদিন রাজ্য সরকারি দফতরগুলিতে ৭০ শতাংশ কর্মীর উপস্থিতি ছিল বাধ্যতামূলক। কিন্তু রাজ্য়ে লাগামছাড়া সংক্রমণে ঘুম ছুটেছে স্বাস্থ্য় ভবনের। বাধ্য় হয়ে সামজিক দূরত্ব ও ভিড় এড়াতে জোর দিয়েছে রাজ্য় সরকার।  তাই এবার থেকে সরকারি অফিসে ৭০ শতাংশের বদলে ৫০ শতাংশ কর্মীরা আসবেন। 

পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, সব সরকারি দফতরে প্রতি সপ্তাহে স্যানিটাইজ করা হবে। অফিসে ভিড় কমাতে ওয়ার্ক ফ্রম হোমকে গুরুত্ব সহকারে বিচার  করছে রাজ্য় । সরকারি অফিসগুলির পাশাপাশি বেসরকারি অফিসগুলিকেও ওয়ার্ক ফ্রম হোম পদ্ধতিতে কাজ করানোর আবেদন জানান মুখ্যমন্ত্রী।

মমতা আরও বলেন, রাজ্য়ে বিভিন্ন পরিস্থিতি মানিয়ে নিয়ে সরকারকে চলতে হচ্ছে। দেশের অন্য কোথাও এই পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়নি। এ প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে কোয়ারেন্টাইন সেন্টার তৈরি, মৃতদেহ দাহ করতে গিয়ে জনতার ক্ষোভের মুখে পড়তে হয়েছে রাজ্য়কে। পাড়ায় কোয়ারেন্টাইন সেন্টার তৈরিতে বাধা দেওয়া হচ্ছে। শ্মশানে মৃতদেহ পোড়াতেও বাধা দিচ্ছে।

এই বলেই থেমে থাকেননি মুখ্যমন্ত্রী। এ প্রসঙ্গে কেন্দ্রের দিকে সাহায্য় না করার অভিযোগ তুলেছেন তিনি।  মমতা বলেন,কোনওরকম সহযোগিতা ছাড়া বাংলা যেভাবে কাজ করছে সেভাবে আর কেউ করছে না। একমাত্র এই রাজ্যেই কেন্দ্রের তরফে সহযোগিতা পাওয়া যাচ্ছে না। তবুও চিকিৎসকরা সাধ্যমতো চেষ্টা করে যাচ্ছেন। যতটা পারবেন সম্ভব সকলে ঘরে থাকুন।