নতুন দায়িত্ব পেলেন নির্মল মাজি। অন্য দিকে ডানা ছাঁটা হল অভিষেক ঘনিষ্ঠ তৃণমূল নেতা শান্তনু সেনের। এন আর এস মেডিকেল কলেজের রোগী কল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান হিসেবে নতুন দায়িত্ব নিলেন নির্মল মাজি।।এত দিন এই দায়িত্ব সম্রাট ছিলেন স্মিতা বক্সী।  এনআরএস কাণ্ডে প্রথম থেকেই নির্মল মাজি ওপর ভরসা রাখেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের যে দিন এসএসকেএম হাসপাতালে যান সেদিন তাঁর গাড়িতেই ছিলেন তিনি। সূত্রের খবর, এই কান্ডের প্রতিটি পুঙ্খানুপুঙ্খ রিপোর্ট তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে জানিয়েছেন।  এমনকী অভিষেক ঘনিষ্ঠ রাজ্যসভার সংসদ তথা আইএমএ-এর সর্বভারতীয় সভাপতি শান্তনু সেন যে সামাল দিতে পারছেন না সে বিষয়েও তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে অভিযোগ করেন। গোটা ঘটনা মোটামুটি আয়ত্তে চলে আসার পরেই তাই পদক্ষেপ গ্রহণ করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। 

এতদিন নির্মল মাজি কলকাতা মেডিকেল কলেজ ও স্কুল অফ ট্রপিক্যাল মেডিসিন এর রোগী কল্যাণ সমিতর দায়িত্বে ছিলেন। এবার তার সাথে জুড়ল বাড়তি দায়িত্ব। অন্য দিকে আরজিকর মেডিকেল কলেজের রোগী কল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান পদ থেকে সরানো হলো শান্তনু সেন-কে এ বিষয়ে জিজ্ঞেস করা হলে সংবাদমাধ্যমের সামনে কিছু বলতে চাননি।  তাঁর বক্তব্য,  'প্রশাসনিক সিদ্ধান্ত কোন মন্তব্য করব না।'

প্রসঙ্গত বিক্ষুব্ধ জুনিয়র ডাক্তাররা মমতা বন্দ্যোপাধ্য়য়ের সঙ্গে বৈঠকে এসে অনুযোগ করেন, রোগী কল্যাণ সমিতি অকার্যকর হয়ে পড়ে আছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তখনই লাইভেই বলেন, এই কোগী কল্যাণ সমিতিকে চাঙ্গা করতে হবে। পুলিশ এবং ডাক্তারদের এই সমিতিতে যুক্ত করতে হবে। 

এর পরেই জিরো টলারেন্স নীতির বাস্তবায়ন। মমতা বুঝিয়ে দিলেন, চিকিৎসা পরিষেবার সমস্ত দিকগুলি নিয়ে তিনি ভাবছেন।