কাঠগড়ায় ওঠার আগে অসুস্থ বোধ করেছিলেন বৃদ্ধ সাক্ষী। সেকথা জানিয়েওছিলেন বিচারককে। অভিযোগ, তার পরেও বিচারক চাপ দেওয়ায় জোর করে সাক্ষ্য দিতে বাধ্য হন বৃদ্ধ। আর সাক্ষ্যদান পর্ব চলার সময়ই হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয় তাঁর। 

শুক্রবার দুপুরে চাঞ্চল্যকর এই ঘটনা ঘটেছে আলিপুর জজ কোর্টে। সাক্ষ্য দিতে গিয়ে অসুস্থ হয়ে পড়া ওই বৃদ্ধের ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় বলে প্রত্যক্ষদর্শীদের দাবি। মৃতের নাম এ কে বন্দ্যোপাধ্যায়। 

আদালত সূত্রে খবর, এ দিন সাত নম্বর বিচারক সুস্মিতা গায়েনের এজলাসে একটি মামলার সাক্ষী দিতে এসেছিলেন ওই বৃদ্ধ। সাক্ষী দেওয়ার জন্য তাঁর নাম ধরে ডাকা হয়। তখনই ওই বৃদ্ধ বিচারককে জানান, তিনি অসুস্থ বোধ করছেন। তাঁর কথা বলতে অসুবিধা হচ্ছে বলেও বিচারককে জানান ওই বৃদ্ধ।

 অভিযোগ, বিচারক তখন তাঁকে বলেন, 'এভাবে অসুস্থ অবস্থায় কেন আদালতে আসেন? সাক্ষ্য না দিলে আমি মামলা এগিয়ে নিয়ে যাব কী করে? আপনাকে সাক্ষ্য দিতেই হবে।'

প্রত্যক্ষদর্শীদের দাবি অনুযায়ী, এর পরই সাক্ষ্য দেওয়ার জন্য বৃদ্ধকে ধরাধরি করে কাঠগড়ায় নিয়ে আসা হয়। মুহূর্তের মধ্যেই ওই বৃদ্ধ আরও অসুস্থ বোধ করতে শুরু করেন। এর পরে অচৈতন্য হয়ে পড়ে যান তিনি। 
এজলাসে উপস্থিত আইনজীবী এবং সাধারণ মানুষই তাঁকে ধরাধরি করে বাইরে নিয়ে আসেন। এর পর হাসপাসাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। প্রত্যক্ষদর্শীদের অনুমান, সম্ভবত হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েই মৃত্যু হয়েছে ওই বৃদ্ধের। বৃদ্ধের পরিবারের কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া না গেলেও কেন তিনি অসুস্থ বোধ করা সত্ত্বেও তাঁকে সাক্ষ্যদানে বাধ্য করা হলো, আইনজীবীদের মধ্যেই সেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।