আপাতত  দু' মাসেরও বেশি সময় ধরে বন্ধ থাকবে উল্টোডাঙা উড়ালপুলের একাংশ। এর ফলে ইএম বাইপাস তো বটেই, সল্টলেক এবং নিউ টাউনেও ব্যাপক যানজটের আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। 

কেএমডিএ-র তরফে জানা গিয়েছে, ভিআইপি রোড থেকে ইএম বাইপাসের দিকে যাওয়ার জন্য যে লেনটি রয়েছে, সেটি আপাতত বন্ধ রাখা হবে। সেতুর ওই অংশের পিলারগুলিতে মোট আট জায়গায় ফাটল ধরা পড়েছে। সেগুলির স্থায়ী মেরামতি করতেই অন্তত দু' মাস সময় লেগে যাবে বলে খবর। এ দিন থেকেই সেই মেরামতি কাজ শুরু করা হয়েছে। তবে বাইপাস থেকে বিমানবন্দরের দিকে যাওয়ার জন্য উড়ালপুলের লেনটি অবশ্য ইতিমধ্যেই খুলে দেওয়া হয়েছে। 

আরও পড়ুন- ফিরল ৬ বছর আগের আতঙ্কের স্মৃতি, ব্রিজের ভাঙন বাঁচাল পরিদর্শকদের তৎপরতা

সেতুর একাংশ বন্ধ থাকায় বিমানবন্দরের দিক থেকে বাইপাসে আসার গাড়ির চাপ বাড়ছে ভিআইপি রোডের উপরে। ফলে গোলাঘাটা থেকে উল্টোডাঙ্গার মধ্যে ব্যাপক যানজট হচ্ছে ভিআইপি রোডে। আবার বহু গাড়িই নিউ টাউনের রাস্তা ব্যবহার করে বিমানবন্দরের দিক থেকে বাইপাসে আসছে। আচমকা গাড়ির চাপ বাড়ায় এ দিন ব্যস্ত সময়ে নিউ টাউন এবং সেক্টর ফাইভ এলাকাতেও ব্যাপক যানজট সৃষ্টি হয়। 

আরও পড়ুন- কেন দেরি হবে উল্টোডাঙা ব্রিজ খুলতে, জানা গেল পরিদর্শকদের কথায়

উড়ালপুলের বন্ধ লেনটির বিকল্প পথ হিসেবে ভিআইপি থেকে বাইপাসে আসার জন্য একটি বেইলি ব্রিজ তৈরি করা হচ্ছে। কোন জায়গায় সেই ব্রিজ হবে, তা চিহ্নিত করতে এ দিন কেএমডিএ, বিধাননগর পুরসভা, গার্ডেনরিচ শিপ বিল্ডার্স-এর প্রতিনিধিরা এলাকা পরিদর্শন করেন। তিন- চারদিনের মধ্যে এই বেইলি ব্রিজ চালু হলে যানজট সমস্যার কিছুটা সুরাহা হবে। মাঝেরহাট সেতু বিপর্যয়ের পরেও একই ভাবে বেইলি ব্রিজ বসিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেওয়া হয়েছিল। তবে  যতদিন না বন্ধ সেতুর অংশ পুরোপুরি চালু হচ্ছে, ততদিন ভিআইপি রোড এবং নিউ টাউনে যানজট সমস্যায় নাকাল হতেই হবে সাধারণ মানুষকে।