কলকাতা বিমানবন্দরে ইন-লাইন ব্যাগেজ ব্যবস্থায় মোবাইলের পাওয়ার ব্যাঙ্ক নিয়ে রীতিমতো ভোগান্তি বিমান সংস্থা সহ বহু যাত্রীর। এমনকি পাওয়ার ব্যাঙ্কের কারণে কয়েকটি উড়ান ছাড়তেও দেরি হয়। সূত্রের খবর, আন্তর্জাতিক নিয়ম অনুযায়ী, বিমানের পেটের ভিতরে যে ব্যাগ পাঠানো হয় সেখানে পাওয়ার ব্যাঙ্ক, মোবাইল চার্জার নিয়ে যাওয়া যাবে না।

আরও পড়ুন, 'স্তম্ভিত এবং শোকাহত', শোকবার্তায় তাপসকে তৃণমূল পরিবারের সদস্য বললেন মমতা

সূত্রের খবর,  সোমবার থেকে কলকাতায় ডোমেস্টিক বা অভ্যন্তরীণ উড়ানের ক্ষেত্রে ইন-লাইন ব্যাগেজ ব্যবস্থা চালু হয়েছে। এই ব্যবস্থায় যাত্রীরা টার্মিনালে ঢুকে সরাসরি উড়ান সংস্থার চেক-ইন কাউন্টারে গিয়ে বড় বড় ব্যাগ তুলে দিচ্ছেন। এবং সেই ব্যাগ কনভেয়ার বেল্ট দিয়ে যাওয়ার সময়ে স্বয়ংক্রিয় ব্যবস্থায় এক্স-রে হয়ে যাচ্ছে। কিন্তু সমস্যা তৈরি হচ্ছে পাওয়ার ব্যাঙ্ক নিয়ে। সোমবার ও মঙ্গলবার পাওয়ার ব্যাঙ্কের কারণে কয়েকটি উড়ান ছাড়তে দেরি হয়। কয়েক জন যাত্রীকে বিমানে ওঠার আগের মুহূর্তে ডেকে নিয়ে ব্যাগ খোলাতে হয়। কিছু যাত্রী চলে গেলেও তাঁদের ব্যাগ কলকাতায় থেকে যায়। তবে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের দাবি, ওই সব ব্যাগে পাওয়ার ব্যাঙ্ক কিংবা মোবাইল চার্জার ছিল। 

আরও পড়ুন, 'বড় অভিমান নিয়েই চলে গেলেন তাপসদা', মন খুললেন ঋতুপর্ণা

 উড়ান সংস্থার প্রতিনিধি সূত্রে খবর, কোনও যাত্রী তাঁর চেক-ইন ব্যাগে পাওয়ার ব্যাঙ্ক নিলে এ বার থেকে সেই ব্যাগ পড়ে থাকবে কলকাতা  বিমানবন্দরেই। যাত্রীর থেকে অনুমতিপত্র আনিয়ে, ব্যাগ খুলে পাওয়ার ব্যাঙ্ক বার করে তবেই ফের ব্যাগ বিমানে করে গন্তব্যে পাঠানো হবে। তবে শুধু পাওয়ার ব্যাঙ্ক নয়, এই তালিকায় রয়েছে মোবাইল চার্জার, লাইটার এবং লাইটারে জ্বালানি ভরার রিফিলও। আন্তর্জাতিক নিয়ম অনুযায়ী, বিমানের পেটের ভিতরে যে ব্যাগ পাঠানো হয় সেখানে পাওয়ার ব্যাঙ্ক, মোবাইল চার্জার নিয়ে যাওয়া যাবে না। উড়ান সংস্থার এক কর্তা জানিয়েছেন,  'প্রতিটি টিকিটে এমনকি ওয়েবসাইটেও দেওয়া রয়েছে কোন কোন জিনিস চেক-ইন ব্যাগে নিয়ে যাওয়া যাবে না। তার মধ্যে পাওয়ার ব্যাঙ্ক, মোবাইল চার্জার এবং লাইটার রয়েছে। তা সত্ত্বেও অনেকেই চেক-ইন ব্যাগে এই সব সামগ্রী রেখে দিচ্ছেন।' এই সমস্ত কারণেই বিমান ছাড়তে দেরি হচ্ছে।