বিপিএল তালিকাভুক্তদের জন্য বরাদ্দ চাল পাচার হচ্ছিল ব্যবসায়ীদের হাতে। খবর পেয়ে রেশন দোকানের মালিককে ধরে ফেলেন বরোর চেযারম্যান। অভিযোগ, বহুদিন ধরেই গরিবের চাল চলে যাচ্ছিল ধনীর হাতে। অবশেষে গ্রেফতার রেশন ডিলার ও ব্য়বসায়ী। 

শনিবার কলকাতায় আসছেন মোদী, কখন কোথায় যাচ্ছেন জানেন কি

এলাকাবাসীরা জানান, আজ সকালে খবর পেয়ে চেয়ারম্যান ইন্দ্রজিৎবাবু ঠাকুর পুকুরের 3a-এর একটি রেশন দোকানে যান। সেখানে তিনি দেখেন, সাধারণ মানুষের অভিযোগ ঠিক। রেশনের চাল,গম একটি গাড়িতে তোলা হচ্ছে। দুর্নীতি দেখামাত্রই তিনি ঠাকুরপুকুর থানাকে খবর দেন। পরে পুলিশ এসে দোকানের মালিক ও অসাধু ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করে। 

দিলীপের উল্টো পথে মমতা, পদযাত্রা থামিয়ে জায়গা করে দিলেন অ্যাম্বুল্যান্সকে

পরে দোকানে দেখা যায়, প্রায় ২৫০ বস্থা চাল ও গম মজুত আছে। যেগুলো দোকানের মালিক বিক্রি করা জন্য গাড়িতে তোলার ব্য়বস্থা করছিল।  ইন্দ্রজিৎবাবু জানান, বহু দিন ধরে এই রেশন দোকান থেকে রসদ পাচ্ছিল না গরিব মানুষজন। তাই দুর্নীতির খবর পেয়ে পুলিশের সাথে দুজনকে হাতে নাতে ধরা হয়।  যদি সরকার চায় তাহলে এই চাল,গম  এলাকার গরিবদের মধ্যে বন্টন করে দেওয়া হবে।

বছরের প্রথম উপচ্ছায়া চন্দ্রগ্রহণ, সাক্ষী থাকবে কলকাতাও

তবে এই প্রথমবার নয়। অতীতেও এই ধরনের রেশন দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে কলকাতায়। সামনের বোর্ডে রেশনের খতিয়ান দেওয়ার নিয়ম থাকলেও বেশিরভাগ দোকানের মালিক সেই কাজ করেন না। ফলে সহজেই গরিবের বরাদ্দ রেশন পাচার হয়ে যায়। কম দামে সেই জিনিস কেনার জন্য় ওত পেতেে বসে থাকে অসাধু ব্য়বসায়ীরা।