বছর পড়লেই শুরু হবে কলকাতা বইমেলা। ২৯ জানুয়ারি থেকে শুরু হয়ে চলবে ৯ জানুয়ারি অবধি। এতদিন অবধি শুধু সবাই বইমেলায় গিয়ে ক্লাসিক লিটেরেচারের স্বাদ পেয়েছে। কিন্তু এবার তাঁর থেকে পুরোপুরি অন্য় স্বাদে রাশিয়ান সাহিত্য়ে, মন কাড়বে কলকাতা বইমেলা। তবে ভালোলাগার অন্য়তম কারণ হল রাশিয়ার সেই বইগুলির ইংরেজি ও বাংলা ভাষায় অনুবাদ থাকবে।  

আরও পড়ুন, আজ মরশুমের শীতলতম দিন, এক ধাক্কায় তাপমাত্রার পারদ কমল ৩ ডিগ্রি

 কলকাতা আন্তর্জাতিক বইমেলা, এবার মূলত রাশিয়ান সাহিত্য়েই তাই ফোকাস করা হবে। রাশিয়ার অন্য়তম সেরা লেখকরা মঙ্গলবার দিন উপস্থিত ছিলেন। পাঠক এবং লেখক উভয়ের মধ্য়েই এই কথপোকথন চলেছে। উপস্থিত ছিলেন, রাশিয়ার জেনারেল কনুসুলেট আলেকজে ইদামকিন।

 

 

আরও পড়ুন, দেশ জ্বলছে-ওনারা পোশাক দেখে বেড়াচ্ছেন, মোদীকে খোঁচা দিদির

প্রকাশক এবং বই বিক্রেতা গিল্ডের প্রেসিডেন্ট ত্রিদীব চট্টোপাধ্য়ায় জানালেন, গতবারের মত এবারও সল্টলেকের সেন্ট্রাল পার্কে কলকাতা বইমেলা অনুষ্ঠিত হবে। আগের বছর মোট আয়ের পরিমান ছিল ২২ কোটি। তিনি আরও জানালেন, গত ৪৩ বছরে, বিশ্বের অন্য়তম সেরা বইমেলা বানিয়ে এসেছে গিল্ড।  এবার ৬০০ এর কাছাকাছি বই-র স্টল এবং ২০০ এর কাছাকাছি ম্য়াগাজিনের স্টল রাখা হবে। এবং কলকাতা আন্তর্জাতিক বইমেলা বাইরে দেশ থেকে অন্য়ান্য় যারা থাকবে, তারা হল ইকে, ইউএস, জাপান, ভিয়েতনাম, ফ্রান্স, আর্জেন্টিনা, মেক্সিকো, পেরু, অস্ট্রেলিয়া, লাতিন আমেরিকা এবং বাংলাদেশ।

আরও পড়ুন, কলকাতায় মিছিল করতে লুকিয়ে আসছে বিক্ষোভকারীরা,বাসেও চিরুনি তল্লাশি পুলিশের


অপরদিকে সামনের বছর, ১৯২০ সালে ইশ্বর চন্দ্র বিদ্য়াসাগরের জন্মের ১০০ বছর পূর্ণ হবে।  গিল্ডের তরফে এটা ঘিরে একটি কলকাতা  আন্তর্জাতিক বইমেলায় বিশেষ পরিকল্পনা রয়েছে। আবার কলকাতা সাহিত্য় ফেস্টিভ্য়াল ১৭ তম বছরে পা দিচ্ছে । তাই এ বিষয়ে তর্ক, বক্তৃতা , ভাবনা, পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা করা হবে।