যাদবপুর বিশ্ববিদ্য়ালয় কর্তৃপক্ষ সম্প্রতি জানিয়েছিল, ছাত্র সংসদ ভোট হবে ১৯ ফেব্রুয়ারি। আর এমন একটা সময়ে ৩১ জন এসএফআই সদস্য় দিলেন ইস্তফা। ছাত্র সংগঠন এবং সিপিএমের কলকাতার জেলা নেতৃত্বের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে  যাদবপুর বিশ্ববিদ্য়ালয়ের আঞ্চলিক কমিটির সম্পাদকের কাছে জমা পড়ল এই গণইস্তফা। স্বাভাবিকভাবেই তাই ভোটের দেড় মাস আগে বড় সড় ধাক্কার মুখে পড়ল এএফআই সংগঠন। 

আরও পড়ুন, ক্য়াট-এ সেরা যাদবপুর বিশ্ববিদ্য়ালয়ের ছাত্র দেবর্ষি, এদিকে স্বপ্ন অর্থনীতি নিয়ে গবেষণা

যাদবপুর বিশ্ববিদ্য়ালয়ের আঞ্চলিক কমিটির সম্পাদকের কাছে জমা পড়া চিঠিতে সদস্য়রা তাদের ক্ষোভ জানিয়েছেন। তার মধ্য়ে অন্য়তম হল ধর্ষনের অভিযোগ।  সদস্য়দের দাবি, এই অভিযোগ পাওয়ার পরেও কলকাতার জেলা নেতৃত্ব গত চার মাসে কোনও রিপোর্ট প্রকাশ করেনি। শুধু এটাই নয়, একাধিক এসএফআই নেতার রক্ষনশীল মানুষিকতার  বিরুদ্ধেও অভিযোগ জানিয়েছেন। 

আরও পড়ুন, পিকনিক করতে বেরিয়ে ফিরল না তরুণ, শহরের ভাগাড় থেকে উদ্ধার দেহ


এছাড়াও সিপিএমের মধ্যে কেন উচ্চবর্ণের নেতারাই দলের শীর্ষ জায়গায় রয়েছেন, তা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন স্বাক্ষরকারীরা। জুটার কয়েকজন অধ্যাপক নেতার বিরুদ্ধেও ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়েছে ওই চিঠিতে। তাতে অভিযোগ করা হয়েছে, সংগঠনের মধ্যে গোষ্ঠী তৈরি করতে জুটার কয়েকজন অধ্যাপকের ভূমিকাও কোনও ভাবেই বাদ দেওয়া যায় না। যদিও কারও নাম উল্লেখ করা হয়নি সেখানে। এই পরিস্থিতি নিয়ে এসএফআইয়ের কলকাতা জেলা সম্পাদক তথা রাজ্য সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য সমন্বয় রাহা অবশ্য় সংগঠনের বিষয়ে মুখ খুলতে নারাজ।