জয়েন্ট এন্ট্রান্সের প্রশ্নপত্র বিতর্কে মুখ খুলেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্বয়ং।  বাংলা-সহ সমস্ত আঞ্চলিক ভাষায় প্রশ্নপত্রের দাবি করেছেন তিনি। বিষয়টি কিন্তু শুধু মৌখিক বিবৃতিতেই সীমাবদ্ধ রইল না। জয়েন্ট এন্ট্রান্সে বাংলায় প্রশ্নপত্র তৈরির দাবি জানিয়ে এবার কেন্দ্রীয় সরকারকে চিঠি দিল রাজ্য সরকার। 

বহু ভাষাভাষীর দেশ ভারত। তাহলে  জয়েন্ট এন্ট্রান্সের মতো সর্বভারতীয় পরীক্ষায় কেন একটি মাত্র আঞ্চলিক ভাষায় প্রশ্নপত্র তৈরি করা হবে? এই প্রশ্নেই এখন বিতর্ক তুঙ্গে জাতীয় রাজনীতিতে। মোদী সরকারের বিরুদ্ধে আঞ্চলিক ভাষাগুলি বৈষম্যমূলক আচরণের অভিযোগ তুলেছে বিরোধীরা। বুধবার সকালে টুইট করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি লেখেন, 'গুজরাতি ভাষাকে আমি ভালোবাসি। কিন্তু অন্য আঞ্চলিক ভাষাগুলিকে কেন অবহেলা করা হবে? অন্য আঞ্চলিক ভাষায় যাঁরা কথা বলেন, তাঁদের সঙ্গে কেন অন্যায় করা হবে? বাংলা-সহ অন্য সমস্ত ভাষায় জয়েন্ট এন্ট্রান্সের প্রশ্নপত্র করা উচিত।'  এমনকী, এই ইস্যুতে আন্দোলনে নামার হুঁশিয়ারি দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রীর বিবৃতি কয়েক ঘণ্টা বাদে জয়েন্ট এন্ট্রান্সে বাংলায় প্রশ্নপত্রের দাবিতে কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়নমন্ত্রীকে চিঠি দিলেন রাজ্যে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়।  

এদিন মুখ্যমন্ত্রীর সুরেই শিক্ষামন্ত্রীও বলেন, 'জয়েন্ট এন্ট্রান্স পরীক্ষা গুজরাতি ভাষায় প্রশ্নপত্র তৈরির সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্র। তাতে কোনও আপত্তি নেই। কিন্তু বাংলার মতো সমৃদ্ধশালী ভাষাকে কেন অবহেলা করা হবে? অবিলম্বে বাংলাতেও প্রশ্নপত্র করার দাবি জানিয়ে কেন্দ্রকে চিঠি দিয়েছি।'

উল্লেখ্য, দেশের সমস্ত রাজ্যে স্কুলগুলিতে আঞ্চলিক ভাষা বা স্থানীয় ভাষায় পড়াশোনা করতে পারে পড়ুয়ারা। কিন্তু সর্বভারতীয় পরীক্ষায় আঞ্চলিক ভাষার কোনও স্থান নেই। হয় ইংরেজি নয়তো বাংলা ভাষায়  পরীক্ষা দিতে হয় পড়ুয়াদের। এতদিন জয়েন্ট এন্ট্রান্স পরীক্ষাতে হিন্দি ও ইংরেজিতে প্রশ্নপত্র থাকত। কিন্তু সম্প্রতি নির্দেশিকা জারি করে কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়মন্ত্রক জানিয়েছে, আগামী বছর গুজরাতি ভাষায়ও পরীক্ষা দিতে পারবেন পরীক্ষার্থীরা। অর্থাৎ হিন্দি, ইংরেজির পাশাপাশি প্রশ্নপত্র থাকবে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির রাজ্যের ভাষাতেও।