পড়াশোনার চাপে আত্মহত্যার অভিযোগ উঠল স্কুল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে। এবারে কাঠগড়ায় বউবাজারের সেন্ট জোসেফ স্কুল। সোমবার ছাত্রের আত্মহত্যাকে কেন্দ্র করে স্কুলে বিক্ষোভ দেখায় ছাত্র অভিভাবক, ছাত্ররা। যদিও এ বিষয়ে এখনও স্কুল কর্তৃপক্ষের কোনও বক্তব্য পাওয়া যায়নি। 

শুক্রবারও কারণটা অনেকেরই অজানা ছিল। মেট্রোয় এক ছাত্রের মরনঝাঁপকে কেন্দ্র করে জল্পনা শুরু হয়েছিল মেট্রো যাত্রীদের মধ্যে। তখনও জানা যায়নি মৃতের নাম। সোমবার সেন্ট জোসেফে বিক্ষোভের দৌলতে পরিষ্কার হয়ে গেল ছবিটা।  জানা গেল, পড়াশোনার চাপ সামলাতে না পেরে মেট্রো রেলে আত্মহত্যা করেছে ক্লাস টেনের ওই কিশোর। সেন্ট জোসেফের ওই ছাত্রের নাম তুরীন বন্দ্যোপাধ্য়ায়।

এদিন বিক্ষোভকারীরা জানান, আত্মহত্য়ার চিঠিতে পড়াশোনার চাপের কথা উল্লেখ করেছিল তুরীন। ছাত্রের সহপাঠীরা জানায়, পুজোয় সময় কাটাতে গিয়ে স্কুলের টাস্ক করতে পারেননি অনেকে। যার জন্য স্কুল খুলতেই বকুনি খেতে হয় ছাত্রদের। সামনেই বোর্ডের পরীক্ষা তাই আরও ভালো পড়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিল সবাই। শেষদিনও পড়াশোনাতে  মন দেওয়ার জন্য সবাইকে উদ্বুদ্ধ করেছিল তুরীন। কিন্তু ও যে এই ধরনের কাজ করবে তা ভাবতে পারেনি কেউ। সোমবার সকাল থেকেই স্কুলের সামনে শুরু হয় অভিভাবকদের বিক্ষোভ। বিক্ষোভ রুখতে বন্ধ করে দেওয়া হয় স্কুলের দরজা। এমনকী অভিভাবকরা স্কুল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলতে চাইলে দেওয়া হয়নি অনুমতি। সংবাদমাধ্য়মেও ছাত্রের আত্মহত্যা নিয়ে কোনও বক্তব্য রাখেনি স্কুল কর্তৃপক্ষ। বন্ধুর জন্য প্ল্যাকার্ড হাতে দেখা যায় ছাত্রদের।