' আমি মমতা-অভিষেকের কাছে কৃতজ্ঞ' করোনা আক্রান্ত মাকে দেখতে আসতেই সৌজন্য সাক্ষাতের পরই বার্তা মুকুল পুত্র শুভ্রাংশুর। বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের স্ত্রী সম্প্রতি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। বুধবার তাঁকে হাসপাতালে দেখতে গিয়েছিলেন তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদ অভিষেক বন্দ্য়োপাধ্য়ায়। এরপরেই শুভ্রাংশু বার্তায় রাজ্য-রাজ্যনীতিতে শুরু জোর জল্পনা। প্রশ্ন একটাই সবার মুখে তাহলে কি, আবার ঘাসফুলেই ফিরছেন রায় পরিবার।

আরও পড়ুন, মুকুল রায়ের স্ত্রীকে দেখতে হাসপাতালে অভিষেক, এবার কি তবে 'ঘর ওয়াপসি' 

 

 

মুকুল পুত্র শুভ্রাংশু রায় জানিয়েছেন, মা অত্যন্ত অসুস্থ। তাঁকে দেখতে এসেছিলেন অভিষেক বন্দ্য়োপাধ্য়ায়। এই ধরণের সৌজন্যের রাজনীতির উদাহরণ আগে হয়েছে কিনা আমার জানা নেই। আর ভবিষ্যতেও দেখা হবে কিনা জানি না। আমি মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায় এবং অভিষেক বন্দ্য়োপাধ্যায়ের কাছে কৃতজ্ঞ।' আর এরপরেই   শুভ্রাংশু বার্তায় সরগরম রাজ্য-রাজ্যনীতি। যদিও মুকুল-শুভ্রাংশ কারও সঙ্গেই দেখা হয়নি অভিষেকের। শুধু চিকিৎসকের সঙ্গে কথা বলেই হাসপাতাল ছাড়েন তৃণমূলের যুবরাজ। প্রসঙ্গত, বিপুল ভোটে জয়ী হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। নেই বুক ধুক পুক, যে কে ছেড়ে যাবে আবার তৃণমূল থেকে। কেইবা হবে বেসুরো, বোঝাতে বসবেন তাঁকে সৌগত। তবে সেসব এখন ইতিহাস। বরং ঘটেছে উলটপূরাণ। ভোটের আগের অধিকারী পরিবারের উল্টো ছায়া এসে পড়েছে রায় পরিবারে। 

আরও পড়ুন, 'মেলেনি সাড়া', মুর্শিদাবাদে অক্সিজেন প্লান্টের আর্জিতে অধীরের 'পত্রবাণ'-র নিশানায় মমতা  

 

 


তাছাড়াও এখনও তাজা, ভোটের মাঝে মমতা বলেছিলেন,'শুভেন্দুর মত অত খারাপ না মুকুল'।  মুকুল রায় এবং তাঁর ছেলে  শুভ্রাংশু রায় কি তাহলে ফের ফিরতে চলেছেন ঘাসফুলে, তুঙ্গে আলোচনা গোটা বাংলা জুড়ে। এদিকে বিজেপির রাজ্য় সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেছেন, সঙ্কটের সময় সব ভূলে গিয়ে একসঙ্গে আসাই ভালো। কষ্টের সময় একসঙ্গে থাকা উচিত। পূর্ব-পরিচিত, দেখা করতেই পারেন।' আর  দিলীপ ঘোষের এই বার্তাই বাবা-ছেলের মা-মাটি-মানুষের কাছে ফির যাওয়ার জল্পনাকে উসকে দিয়েছে।