দেখতে দেখতে সপ্তম বর্ষে পা দিল গড়িয়ার আনন্দপল্লির সানি ব্লিস আবাসনের দুর্গোৎসব। এই আবাসনে মোট ষাটটি পরিবারের বাস। পুজোর কয়েকদিন একসঙ্গেই কাটান সবাই মিলে। কিন্তু সবাই মিলে আয়োজন শুরু হয়ে যায় অনেক আগে থেকে। যা শুরু হয়ে যায় পুজোর মিটিং থেকেই। আবাসনের পুজো হলেও প্রতি বছরই নতুন নতুন ভাবনা নিয়ে হাজির হয় সানি ব্লিসের বাসিন্দারা। এবার যেমন তাঁদের ভাবনা 'আদিবাসী চেতনা'। 

উদ্যোক্তারা জানিয়েছেন, পরিবেশ বান্ধব উপকরণ দিয়েই তাঁদের মণ্ডপ তৈরি করা হবে। পুজো প্রাঙ্গনে এলে আদিবাসী সংস্কৃতির সঙ্গে পরিচিত হতে পারবেন দর্শকরাও। সবাই মিলে এই পুজোর থিমকে নিখুঁতভাবে ফুটিয়ে তুলতে হাজারো ব্যস্ততার মধ্যেও চেষ্টার কোনও ত্রুটি রাখছেন না আবাসনের বাসিন্দারা। আর পুজোর চারদিন জমিয়ে কী খাওয়া দাওয়া হবে, সেটাও একসঙ্গেই বসে ঠিক করা হবে। 

তবে সানি ব্লিসের পুজোয় বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। তার মধ্যে থাকে আবৃত্তি, গান, নাচ. ক্যুইজ কনটেস্ট, নাটক, রান্নারবপ্রতিযোগিতা। আবাসনের বাসিন্দারাই নানা ধরনের অনুষ্ঠান করেন। এর পাশাপাশি সামাজিক দায়িত্ব পালনে দুঃস্থ মানুষেরও পাশে  দাঁড়ান সানি ব্লিসের আবাসিকরা। সবার সঙ্গে পুজোর আনন্দ ভাগ  করে নেওয়া হয়।